Low Back Pain: কোমরে একটানা চিনচিনে ব্যথা? হাঁটতে গেলেই যন্ত্রণা, সারবে কী করে

গুড হেলথ ডেস্ক

Low Back Pain

কোমরের ব্য়থাটা মাঝেমধ্যেই চাগাড় দেয়। একটানা বসে কাজ করলে বিদ্যুতের মতো কোমরের নীচ থেকে ব্যথার ঝিলিক দিতে থাকে। হাঁটতে গেলে কষ্ট, সিঁড়ি ভাঙতে গেলে শক লাগে। একবার শুয়ে পড়লে ওঠার সময় মনে হয় বিশ্বব্রহ্মাণ্ড ব্যথায় দুলছে। কোমরের ব্য়থায় নাকাল অনেকেই। বিশেষ করে কোমরের পিছনে ও মেরুদণ্ডের নীচের দিকে ব্যথাটাই বেশি। এই ব্যথা আবার শিরশির করে নীচের দিকে নামতে থাকে। মনে হয় ঠান্ডা স্রোত নামছে মেরুদণ্ড বেয়ে।

কোমরের নীচের দিকে অসহ্য এই ব্যথারই নাম লো ব্যাক পেন (Low Back Pain)। একটানা বসে কাজ এখন সকলেরই। তাই কোমরের ব্য়থায় ভুগছেন না বা কখনও কোমরের নীচে ব্যথা হয়নি এমন মানুষ পাওয়া দুষ্কর। ফিক ব্যথা ঠিক নয়, কোমরের নীচে ঘাপটি মেরে থাকা একটা চাপা ব্য়থা যা মাঝেমধ্যেই চিনচিন করতে থাকে। কখনও আবার একটানা ব্যথায় কাবু করে ফেলে। করোনাকালে ওয়ার্ক ফ্রম হোমে এই ব্য়থার প্রকোপ অনেকটাই বেড়েছে। সিঁড়ি বেয়ে উঠতে গেলে এই লো ব্যক পেন একেবারে সাঁড়াশির মতো কোমর কামড়ে ধরে। পিঠের পিছন দিকেও যন্ত্রণা শুরু হয়।

Low back pain

 

অনেক জমানো ব্য়থা বেদনা…

 

না, মনের ব্যথা নয়। তার থেকেও বরং বেশি পিঠ-কোমরের ব্য়থা (Low Back Pain)। এ ব্যথা চাগাড় দিলে চোখের সামনে জগৎ সংসার অন্ধকার হয়ে যায়। মনে হয় কেউ সপাটে চাবুক কষাচ্ছে শরীরে। এই ব্য়থার নানা ধরন, নানা কারণ।

প্রথমত একটানা বসে কাজ, সে বাড়িতেই হোক বা অফিসে। সকাল থেকে শুরু করে দুপুর গড়িয়ে বিকেল-সন্ধে অবধি ঠায় বসে কাজ করে ওঠার সময় মনে হয় কোমর থেকে বাকিটা বুঝি অসাড় হয়ে গেছে। তার পর থেকে সেই যে চিনচিনে ব্য়থা শুরু হয়, তা চলতেই থাকে। ঝুঁকে কাজ করতে গেলে, হাঁটাচলা করতে গেলে বোঝা যায় ব্যথার ভার কত।

Heart Attack: এক মাস আগেই জানান দেয় হার্ট, লক্ষণ চিনুন, সতর্ক হন

Low Back Pain

সারাদিনে বিন্দুমাত্র শরীরচর্চা করার অভ্যাস নেই অনেকের। অফিস শেষে বাড়ি ফিরেই নরম সোফায় শরীর এলিয়ে টিভি দেখার অভ্যাস। এর থেকে কোমর, পা ও পিঠের কত যে ক্ষতি হয় তার হিসেব নিকেশ নেই।

গায়ে একটুও রোদ লাগাতে ভাল না। বাড়ি থেকে বেরিয়েই গাড়ি বা বাস, ট্রেন, সারাদিন অফিসের ঠান্ডা ঘরে ঠায় বসে কাজ, ভিটামিন-ডি-এর সঙ্গে সম্পর্কই প্রায় চুকে গেছে।

রোলিং চেয়ারে বসে একটানা কাজ করলে ব্যথা (Low Back Pain) বাড়বেই।

কম্পিউটার বা ল্যাপটপের সঙ্গে কাঁধ ও হাতের পজিশনের কোনও সামঞ্জস্য নেই। অনেকেই ঘাড় নীচু করে টাইপ করে যান, ফলে ঘাড় শক্ত হয়ে যায়। পিঠের দিক থেকে মেরুদণ্ডে ব্যথা হয়।

চেয়ার ও আনার ডেস্কের মধ্যে উচ্চতার বেশি ফারাক হলে ঘাড়, কোমর, পিঠের নীচে ব্যথা হবেই।

ডায়েট করার চক্করে অনেকেই ভুলভাল খাবার খেয়ে ফেলেন। সঠিক ডায়েট করেন না, ফলে শরীরে ক্যালসিয়ামের অভাব হয়। এর থেকেও হাড় নমনীয় হয়ে ব্য়থা হয়।

Low Back Pain

ব্যথা (Low Back Pain) সারবে নিয়ম মানলেই

বিছানায় ঝুঁকে বসে দীর্ঘ সময় কাজ করবেন না। এতে যেমন পেট ও কোমরের মেদ বাড়বে, তেমনই মেরুদণ্ডে ব্য়থা হবে।

অফিসে কাঠের চেয়ার হলে ভাল। রোলিং চেয়ার থাকলে একটান বসে কাজ করবেন না। প্রতি ঘণ্টায় অন্তত ৫ মিনিটে জন্য উঠে একটু হাঁটাচলা করে নেবেন। পিঠ-কোমর ছাড়িয়ে নিন, পারলে হাল্কা স্ট্রেচিং করে নিন।

টানা ৯-১০ ঘণ্টা কাজ হলে অন্তত দুই থেকে তিন বার উঠে হেঁটে আসুন। বাড়িতে বসে কাজ হলে মাঝে হাল্কা ব্যায়াম করে নিন। ঘাড়, পিঠ ও কোমরের ব্যায়াম বিশেষজ্ঞের থেকে জেনে নেবেন।

চেয়ারে বসেই মাঝেমধ্যে পা নাড়িয়ে নিন। এতে পায়ের পেশিগুলো শিথিল হবে। প্রতি ঘণ্টায় অন্তত এক মিনিট থাইয়ের পেশি শক্ত ও ঢিলে করুন। হাঁটুর ব্যথার ঝুঁকি কমবে।

Bottlemouth Syndrome: বাচ্চা অনেকক্ষণ বোতল মুখে রাখে? ছোট্ট সোনার ওরাল হেলথের যত্ন নিন

Low Back Pain

রোজ অন্তত ২০-৩০ মিনিট ব্যায়াম করুন। কোমর ও পিঠের (Low Back Pain) ব্যায়াম করতেই হবে।

সারাদিনে একবার অন্তত গায়ে রোদ লাগান। ভিটামিন-ডি ব্যথা বেদনার প্রাকৃতিক দাওয়াই।

মহিলারা ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাবেন। রোজকার ডায়েটে ডিম, দুধ, ছানা, মাছ বা চিকেন, সবুজ শাক-সব্জি রাখতেই হবে। ফল, আখরোট, বাদাম খাওয়ার অভ্যাস করুন।

জাঙ্ক ফুড কম খান। প্যাকেটজাত পানীয় যত কম খাবেন তত ভাল।