বাতের ব্যথায় ভুগছেন? গাঁটে গাঁটে অসহ্য যন্ত্রণা? সুস্থ থাকতে এই নিয়মগুলো মানতেই হবে

গুড হেলথ ডেস্ক

বয়স বাড়ার সঙ্গে শরীরে নানাবিধ রোগ বাসা বাঁধতে থাকে। কোমরে যন্ত্রণা, হাঁটুর ব্যথা, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসের মতো একাধিক রোগে ভুগে থাকেন অনেকে। হাঁটুর ব্যথা থেকেই জন্ম নেয় আর্থ্রাইটিসের মতো রোগ।

গাঁটে গাঁটে ব্যথা, হাড়ের সন্ধিস্থলে অসহ্য যন্ত্রণার নামই অস্টিওআর্থ্রাইটিস (osteoarthritis)। যাঁদের শরীরের ওজন বেশি তাঁদের হাঁটুর অস্টিওআর্থ্রাইটিসে (osteoarthritis) আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। সঠিক মাত্রায় খাওয়াদাওয়া এবং নিয়মিত শরীরচর্চার অনুশীলনের মাধ্যমে শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণরেখার মধ্যে রাখা জরুরি।

এই বাতের ব্যথা কখনওই সম্পূর্ণ নিরাময় হয় না। ডাক্তার দেখিয়ে ওষুধ খেয়ে বা ফিজিওথেরাপি করিয়ে ব্যথা নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়। তবে জীবনযাত্রার মানে কিছু প্রয়োজনীয় বদল আনলে এবং দৈনন্দিন অভ্যাসগুলিতে নিয়ন্ত্রণ রাখলে গাঁটে-গাঁটে ব্যথা (osteoarthritis) বশে রাখা সম্ভব।

 arthritis

পারিবারিক ইতিহাসে এ অসুখ থাকলে বংশ পরম্পরায় চলতেই পারে। তবে কম বয়সে বা অসময়ে অস্টিওআর্থ্রাইটিস হওয়ার মূল কারণ আমাদের অত্যাধুনিক বিশৃঙ্খল জীবনযাত্রা। এ ছাড়া সন্ধিস্থলে লাগা কোনও আঘাতকে ফেলে রাখলেও তা পরবর্তীতে অস্টিওআর্থ্রাইটিসের রূপ নিতে পারে।

বাতের ব্যথা থেকে রেহাই পাবেন কী করে?

প্রথমেই দরকার জীবনযাত্রার পরিবর্তন। অত্যাধিক আরাম, আয়েশ, দৈহিক পরিশ্রমের অভাব এ রোগকে আরও আগে ডেকে আনে।

আর্থ্রাইটিসের বংশগত ইতিহাস থাকলে আগে থেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। পরে হওয়ার জন্য ফেলে রাখবেন না।

Osteoarthritis

বয়স বাড়লে অস্থিসন্ধিগুলি দুর্বল হতে শুর করে। এই অবস্থায় শরীরের প্রতিটি অঙ্গ প্রত্যঙ্গগুলি সচল রাখতে শারীরিক ক্রিয়াকলাপ অব্যাহত রাখা প্রয়োজন। নিয়ম করে তাই শরীরচর্চা, যোগাসন, প্রাণায়াম করাটা শরীরের জন্য অত্যন্ত জরুরি।

সন্ধিস্থল বা জয়েন্টগুলোতে যাতে বেশি চাপ না পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখুন। সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা, ভারী কোনও জিনিস তোলা বা স্কোয়াটিং করার সময় পেশিতে চাপ পড়ে। যাঁরা নিয়মিত এই কাজগুলি করে থাকেন তাঁদের আর্থ্রাটিসে ভোগার আশঙ্কা অনেকটা বেশি।

শরীরে ভিটামিন ডি-র পরিমাণ কম থাকলে আর্থ্রাইটিসের (osteoarthritis) সম্ভাবনা বাড়ে। তাই চিকিৎসকের পরামর্শে পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন ডি-যুক্ত খাবার খান।

Knee Arthritis

শুধু হার্ট বা ফুসফুস ভাল রাখতেই নয়, ধূমপান ত্যাগ করার সুফল হিসাবে আর্থ্রাইটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও হ্রাস পায়।

শরীরের ওজন বেশি বাড়তে দেবেন না। নিয়মিত সময় অন্তর ওজন মাপান। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ফাস্ট ফুড, জাঙ্ক ফুড ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন।

ডায়াবেটিস আক্রান্তদের মধ্যে আর্থ্রাইটিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় ৬১ শতাংশ বেশি। তাই রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা জরুরি।