সারাক্ষণ হাতে-পায়ে চিনচিনে ব্যথা, চিনে নিন অস্টিওপোরোসিসের লক্ষণগুলিকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো

অস্টিওপোরোসিস (osteoporosis) বা হাড়ের সমস্যা মোটামুটিভাবে ৩০ বছর বয়সের পর থেকে বিব্রত করতে থাকে মেয়েদের। তবে আজকাল অল্প বয়সেই থাবা বসাচ্ছে মেনোপজ়ের মতো সমস্যা, আমাদের জীবনযাত্রাও এমন হয়ে পড়েছে যে হাড়ের স্বাস্থ্যহানি হতে আরম্ভ করছে আরও আগে থেকেই।

সমীক্ষা বলছে, বিশ্বে বয়সজনিত কারণে হাড়ে যে সমস্যাগুলি বা রোগ দেখা দেয় তার মধ্যে অস্টিওপোরোসিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাই বেশি থাকে। বয়স ৩০-এর কোঠা পেরোলেই এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পেতে থাকে। হাড়ের ঘনত্ব কমে যাওয়ার ফলে সাধারণত অস্টিওপোরেসিসের সমস্যা দেখা দেয়। ঋতুবন্ধের পর থেকে মহিলাদের মধ্যে অন্যান্য শারীরিক সমস্যার পাশাপাশি অস্টিওপোরোসিসের সমস্যা প্রবল ভাবে দেখা দেয়।

 osteoporosis;

লক্ষণ চিনে নিন

যদি দেখেন যে আপনার ওজন ক্রমশ কমছে এবং কোনও কারণ ছাড়াই ঋতুচক্র অনিয়িমত হয়ে পড়েছে, তা হলে অতি অবশ্যই একবার ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। বিশেষ করে যাঁদের বয়স চল্লিশের কাছাকাছি, তাঁদের ক্ষেত্রে এ নিয়মটা মানা বাধ্যতামূলক।

কোমরে বা পায়ে মাঝে-মধ্যেই তীব্র ব্যথার ভাব টের পান? ছোট-খাটো চোট-আঘাতেও হাড় ভেঙে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা দেয়? ক্রমশ বদলাচ্ছে পশ্চার? অতিরিক্ত ট্রেনিং করছেন জিমে? বা একেবারে কোনও ব্যায়ামের সঙ্গেই আপনার কোনও সম্পর্ক নেই? তা হলে আজই সাবধান হয়ে যান। মনে রাখবেন, হাড়ের স্বাস্থ্য যত ভাল থাকবে, তত বেশিদিন আপনিও এই সমস্ত সমস্যার হাত এড়াতে পারবেন।

হাড়ের যত্ন নিতে ক্যালশিয়ামের ভূমিকা অপরিহার্য। ভিটামিন ডি শরীরে ক্যালশিয়াম শোষণে সাহায্য করে। হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতিতেও অনেক ভূমিকা পালন করে ভিটামিন ডি। শরীরে ভিটামিন ডি-র ঘাটতি তৈরি হলে হাড়ের ঘনত্ব কমে যাওয়ার এবং হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। ভিটামিন ডি-এর সর্বোত্তম উৎস হল সূর্যালোক। এ ছা়ড়াও দুগ্ধজাত দ্রব্য, ডিম, বিভিন্ন মরসুমি ফল, মাছের মতো ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার অস্টিওপোরোসিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমায়