ব্রেন ক্যানসারের চিকিৎসায় অ্যান্টিবডি থেরাপি! নতুন পথের খোঁজ

গুড হেলথ ডেস্ক

করোনা চিকিৎসায় অ্যান্টিবডি থেরাপির সুফল পেয়েছেন গবেষকরা। এবার ক্যানসার থেরাপিতেও অ্যান্টিবডির প্রয়োগ শুরু হতে চলেছে। ক্যানসার চিকিৎসায় সেকটি সম্ভাব্য থেরাপি আছে তার মধ্যে অ্যান্টিবডি থেরাপি (Antibody Therapy) বেশি কার্যকরী হতে পারে বলে দাবি করেছেন গবেষকরা। বিশেষ করে মস্তিষ্কের ক্যানসারের (Brain Cancer) চিকিৎসায় ব্রেনে অ্যান্টিবডি ঢুকিয়ে টিউমার কোষ নষ্ট করার নতুন উপায় খুঁজে পাওয়া গেছে।

গবেষকরা বলছেন, এমআরআই আলট্রাসাউন্ড পদ্ধতিতে মস্তিষ্কের ক্ষতিগ্রস্থ কোষগুলিতে অ্যান্টিবডি ঢুকিয়ে দেওয়ার বিশেষ উপায় আবিষ্কার হয়েছে। এই অ্যান্টিবডির নাম ট্রাস্টুজুমাব। ক্যানসার আক্রান্ত কোষগুলির বাড়বৃদ্ধি বন্ধ করবে এই অ্যান্টিবডি।

Monoclonal Antibody Therapy

কীভাবে এই থেরাপি করা হবে?

ব্লাড-ব্রেন ব্যারিয়ারের মাধ্যমে মস্তিষ্কে অ্যান্ডিবডি ঢোকানো হবে, যার জন্য আলট্রাসাউন্ডকে কাজে লাগাবেন গবেষকরা। এই ব্লাড-ব্রেন ব্যারিয়ার হল একধরনের পাতলা পর্দা যা মস্তিষ্ককে সুরক্ষা দেয়। মস্তিষ্কের দেওয়ালে যে রক্তনালীগুলো আছে, তার মধ্যেই থাকে ব্লাড-ব্রেন ব্যারিয়ারযা যা শক্তভাবে ঠাসা কোষের স্তর। এই সুরক্ষা স্তরের কাজ হল রক্ত থেকে ক্ষুদ্র অণুকে মস্তিষ্কে ঢুকতে বাধা দেওয়া। কিন্তু রক্ত থেকে অক্সিজেন ও পুষ্টি এই স্তর ভেদ করে মস্তিষ্কে ঢুকতে পারে। রক্ত থেকে কোনওরকম বিষাক্ত পদার্থ বা জীবাণু যাতে মস্তিষ্কে ঢুকতে না পারে, তার জন্যই সুরক্ষার আবরণী তৈরি করে রাখে এই ব্লাড-ব্রেন ব্যারিয়ার। এই পর্দা ভেদ করে অ্যান্টিবডি মস্তিষ্কে ঢোকানো সহজ ব্যাপার নয়, সেই অসম্ভব কাজকেই সম্ভব করেছেন গবেষকরা।

বিনাইন টিউমার মানে ভাল আর ক্যানসারের ব্রেন টিউমার হচ্ছে খারাপ টিউমার। প্রকৃতিগত ভাবে পার্থক্য হচ্ছে বিনাইন ব্রেন টিউমার খুব আস্তে আস্তে হয়, যার ফলে এই রোগের লক্ষণ বা প্রকাশ অতটা তাড়াতাড়ি হয় না। আর ক্যানসারের ব্রেন টিউমার খুব দ্রুত বৃদ্ধি পায়।

Focused Ultrasound–Enhanced Blood Test for Brain Tumors: World-First Results Published - Focused Ultrasound Foundationমূলত ব্রেস্ট, কিডনি, কোলন থেকে এই ক্যানসার মস্তিষ্কে আসে। লিউকিমিয়া, লিম্ফোমা প্রভৃতি থেকেও ব্রেনে টিউমার হয়। অপারেশনের মাধ্যমে মস্তিষ্ক খুলে যে অংশে টিউমারটা আছে সম্ভব হলে সম্পূর্ণ বা আংশিক ভাবে টিউমারটাকে সরিয়ে দেওয়া হয়। ক্যানসারের টিউমারের ক্ষেত্রে যতবেশি তা অস্ত্রোপচার করে বের করে দেওয়া যায় ততই রোগীর উন্নতির সম্ভাবনা বেশি। রেডিও সার্জারির মাধ্যমে ছোট ছোট টিউমার যেমন ২.৫ সেন্টিমিটার বা ১ ইঞ্চির মতো সেগুলিকে আরও ছোট বা নষ্ট করে দেওয়াও যায়।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, আলট্রাসাউন্ড দিয়ে ব্লাড-ব্রেন ব্যারিয়ারের মধ্যে দিয়ে মস্তিষ্কের ক্ষতিগ্রস্থ কোষগুলিতে অ্যান্টিবডি পাঠানো হবে। এই অ্যান্ডিবডি ক্যানসার কোষগুলোর বিভাজন বন্ধ করবে। আশপাশের সুস্থ কোষগুলিতে টিউমার ছড়িয়ে পড়বে না। ক্যানসার রোগীদের শরীরে এই থেরাপি পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে।