Kidney Cancer: কিডনিতে ক্যানসার হলেই বাদ দিতে হবে না অঙ্গ, জরুরি সচেতনতা

গুডহেল্থ ডেস্ক: ক্যানসার মানেই বিপজ্জনক। এখনও অনেক মানুষের ধারণা রয়েছে, এই রোগ হলে আরোগ্যের ঠিকানা নেই। বিশেষ কয়েকটি ক্যানসারের ক্ষেত্রে এই কথা প্রযোজ্য হলেও ক্যানসার একেবারেই নিরাময় হয় না, এমনটা ঠিক নয়। যেমন কিডনির ক্যানসার (Kidney Cancer)। ঠিক সময়ে ধরা পড়লে এই রোগ থেকে নিরাময়ের সম্ভাবনা অন্যান্য ক্যানসারের তুলনায় অনেক বেশি। অথচ এই ক্যানসার ঠিক সময়ে ধরাটাই মুশকিলের।

তথ্য বলছে, প্রতি বছর গোটা পৃথিবীতে দু’‌লক্ষেরও বেশি মানুষের কিডনি ক্যানসার ধরা পড়ে। এঁদের ৮০%-এরও বেশি মানুষ দু’‌বছরের মধ্যে ও ৯৫% মানুষ পাঁচ বছরের মধ্যে মারা যান। কারণ প্রাথমিক অবস্থায় এই রোগের কোনও উপসর্গই থাকে না। কিন্তু যখন মারাত্মক আকার নিয়ে ধরা দেয়, তত দিনে কিডনি ছাড়িয়ে শরীরের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়ে ক্যানসার।

কিডনি ক্যানসারের (Kidney Cancer) জন্য বিশৃঙ্খল জীবনযাপনই দায়ী

বংশগত কিছু রোগে কিডনি ক্যানসারের সম্ভাবনা বাড়ে ঠিকই, কিন্তু ধূমপান, মদ্যপান ও অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের মতো খারাপ অভ্যাসগুলো কিডনির অসুখের ঝুঁকি বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। স্থূলতা, উচ্চ রক্তচাপের মতো লাইফস্টাইল ডিজিজগুলো কিডনির ক্যানসারকে ত্বরান্বিত করে। কিছু দীর্ঘমেয়াদি ওষুধ বা ক্রনিক রেনাল ফেলিওরের কারণেও কিডনিতে ক্যান্সার হতে পারে।

অসুখ চেনাটাই মুশকিল

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কিডনির ক্যানসারের (Kidney Cancer) কোনও লক্ষণই থাকে না। তাই স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে নিজের কিডনির হাল নিজেকেই জেনে নিতে হতে। অ্যাডভান্সড স্টেজে পৌঁছলে হিমাচুরিয়া বা প্রস্রাবে রক্তপাত, রেনাল লাম্প বা কিডনির ফোলা এবং কোমরের পেছন দিকে ব্যথা হতে পারে।

কীভাবে নিশ্চিত হওয়া যায় কিডনিতে ক্যানসার (Kidney Cancer) হয়েছে?

যখন আল্ট্রাসোনোগ্রাফিতে কিডনিতে কোনও সলিড টিউমার পাওয়া যায়, তখন একটি কন্ট্রাস্ট সিটি স্ক্যান করতে হয়। এই রিপোর্টই বলে দেয় টিউমারটি ক্যানসারাস কিনা।

কিডনিতে ক্যানসার হলেই কিডনি কেটে বাদ দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। ছোট টিউমার থাকলে কেবল টিউমার ও তার চারিদিকের কিছুটা কিডনি টিস্যু বাদ দেওয়া হয়, একে চিকিৎসার পরিভাষায় বলা হয় পার্সিয়াল বা আংশিক নেফরেক্টমি। ল্যাপারোস্কোপি বা রোবোটিক পদ্ধতিতেও রেডিক্যাল বা পার্সিয়াল নেফরেক্টমির সাহায্যেও কিডনির ক্যানসারের (Kidney Cancer) চিকিৎসা করা যায়।

প্রয়োজন সচেতনতা

● সুস্থ জীবনযাত্রা নির্বাহ করা, প্রচুর জল খাওয়া, সবুজ শাকসবজি ও ফল খাওয়া
● যাঁদের কিডনি ক্যানসারের পারিবারিক ইতিহাস আছে, তাঁদের নিয়মিত আলট্রাসোনোগ্রাফি স্ক্রিনিং করা দরকার
● ইউরিনে সামান্য রক্ত দেখা দিলেও অবহেলা করা উচিত নয়। সঙ্গে সঙ্গে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া দরকার

প্রস্টেট ক্যানসারেও সুস্থ জীবনযাপন করা যায়, মাথায় রাখুন এই ১২ পয়েন্ট