Bottlemouth Syndrome: বাচ্চা অনেকক্ষণ বোতল মুখে রাখে? ছোট্ট সোনার ওরাল হেলথের যত্ন নিন

গুড হেলথ ডেস্ক

Bottlemouth Syndrome

বাচ্চাদের দাঁতে হাজারো সমস্যা। সদ্যোজাত থেকে পাঁচ-বারো বছর বয়স অবধি শিশুদের ওরাল হেলথ সংক্রান্ত সমস্যা সবচেয়ে বেশি হয়। এই সময়টাই গুরুত্বপূর্ণ। বাবা-মায়েদের শুরু থেকেই সন্তানের ওরাল হেলথের যত্ন নিতে হবে। ছোটবেলা থেকে এই সমস্যার যদি ঠিকমতো নিরাময় না হয়, তা হলে এর থেকে আগামী দিনে অন্যান্য শারীরিক সমস্যাও দেখা দিতে পারে। ছোট বাচ্চারা কী ধরনের ওরাল হেলথ সংক্রান্ত সমস্যায় ভোগে তা বিস্তারিত জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

শুরুতেই আসা যাক একদম ছোট বাচ্চাদের কথায়। যে শিশুরা মায়ের দুধ খাচ্ছে বা বোতলে দুধ টানছে তাদের ওরাল হেলথের যত্ন একদম গোড়া থেকেই নিতে হবে মা-বাবাকে। বাচ্চারা দীর্ঘসময় যদি মায়ের দুধ খায় বা বোতলে দুধ টানে, তাহলে নিপল পরিষ্কার রাখতে হবে সবসময়। মায়েরা অনেক সময় বাচ্চার মুখে বোতল দিয়ে ঘুম পাড়ানোর চেষ্টা করেন। ফলে একটানা দীর্ঘক্ষণ বোতলের নিপল শিশুর মুখের ভেতর থাকে। এর থেকে মুখে ফাঙ্গাল ইনফেকশন হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।  শিশুদের মুখের মাড়ি, জিভ, ঠোঁট এমনকি গালের ভিতরে এক ধরনের ফাঙ্গাস জন্মায়, যার নাম ‘ক্যানডিডা অ্যালবিক্যাপ’। এটা খুবই যন্ত্রণাদায়ক।

Bottlemouth Syndrome

 

বটল মাউথ সিন্ড্রোম (Bottlemouth Syndrome)

এক ধরনের সংক্রমণজনিত অসুখ। শিশুদের মুখের ভেতর হয়। অনেকেই বটল মাউথ সিন্ড্রোমের কথা জানেন না। বাচ্চার মুথের ভেতরে লালচে ভাব, মাড়িতে লাল দাগ বা দুধের দাঁতে ছোপ দেখেলেই সতর্ক হতে হবে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর কারণই হল বাচ্চাকে একটানা বোতলে করে দুধ খাওয়ানো। বুকের দুধ অথবা বেবি ফুডে যে সুগার রয়েছে, তা দাঁতে লেগে থাকে। মাড়িতেও লেগে থাকে। ব্যাকটেরিয়া এই সুগারকে অ্যাসিডে পরিণত করে, যা দাঁতের এনামেল নষ্ট করে দেয়। এর ফলে দাঁত ও মাড়িতে সংক্রমণ হয়। একে ডাক্তারি ভাষায় বলে বটল মাউথ সিন্ট্রোম (Bottle Mouth Syndrome)।

Baby Bottle Syndrome

Walking: অবসাদে মন আনচান, স্ট্রেসে হাঁসফাঁস! নিমেষে মুড ঠিক হবে এই উপায়ে

কী কী লক্ষণ দেখে সতর্ক হবেন (Bottle Mouth Syndrome)–

মাড়িতে লালচে ভাব।

মাড়িতে সংক্রমণ

দাঁতে ছোপ

মুখের ভেতরে অস্বস্তি, জ্বালা। খাওয়াতে গেলেই কাঁদবে বাচ্চা।

Bottlemouth Syndrome

মায়েরা কী করবেন আর কী করবেন না

প্রথমত বোতল মুখে দিয়ে বাচ্চাকে ঘুম পাড়াবেন না। রাতে শোওয়ানোর আগে বোতলে করে দুধ না খাওয়ানোই ভাল। তার বদলে বাটি-চামচ ব্যবহার করুন।

রাতে বোতলে দুধ খাওয়ালেও জল দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে দিন। দাঁতে বা মাড়িতে যেন দুধ লেগে না থাকে।

সবসময়েই দুধ বা ফলের রস বোতলে করে খাওয়ানোর পরে বাচ্চার মুখ ভাল করে ধুইয়ে দিতে হবে।

ছোট বাচ্চাদের ফ্লোরাইডযুক্ত টুথপেস্ট দিতে পারেন। তবে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়েই বাচ্চার টুথপেস্ট সিলেক্ট করুন।

একটু বড় শিশুদের ক্ষেত্রে দিনে অন্তত দু’বার ব্রাশ করা উচিত। সকালে উঠে এবং রাতে শুতে যাওয়ার আগে।

Bottlemouth Syndrome

ব্রাশ করার সময়ে সোজাসুজি জোরে জোরে না ঘষে, আলতো ভাবে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ব্রাশ করতে হবে। বেশি শক্ত ব্রাশ বাচ্চাকে দেবেন না।

দুধের দাঁত ওঠার পরে মায়েরা অনেক সময় নিপল বা বোতল দিয়ে রাখেন বাচ্চার মুখে। সেক্ষেত্রে খাওয়া হয়ে গেলে বাচ্চাকে কিছুটা জল খাইয়ে দেবেন, এতে দাঁতের ওপর লেগে থাকা কণাগুলো ধুয়ে যায়।

বটল মাউথ সিন্ড্রোমে (Bottle Mouth Syndrome) শিশুর ওপরের পাটির দাঁত ও মাড়ির ক্ষতি হয়। তাই মায়েরা ফিডারে করে বাচ্চাকে দুধ খাওয়ানোর বদলে চামচ দিয়ে দুধ খাওয়ানোই বেশি ভাল। ফিঙ্গার ব্রাশ দিয়েও শিশুর মুখ ও দাঁত পরিষ্কার করা যেতে পারে।