Nasal Spray Addiction: ঘুমোতে গেলেই নাক বন্ধ, স্প্রে ছাড়া চলেই না? এই অভ্যাস বিপজ্জনক

গুড হেলথ ডেস্ক

ঠান্ডা লাগার ধাত কমবেশি সকলেরই। আবহাওয়া বদলে সর্দি-কাশির প্রকোপ বাড়ে। অ্য়ালার্জির সমস্য়া থাকে অনেকের, তাছাড়া  সারা বছরই এসি-তে অফিসকাছারির কাজ সারার কারণেও ঠান্ডা লাগার প্রবণতা থেকে যায় অনেকেরই। ফলে ঘন ঘন নাকের ড্রপ বা স্প্রে নেওয়ার অভ্য়াসও তৈরি হয় (Nasal Spray Addiction)।

সারা রাত শুকনো কাশি, নাক দিয়ে জল পড়া বা ঘুমনোর সময় নাক বন্ধ হয়ে গিয়ে শ্বাসের সমস্যা এগুলো স্বাভাবিক ব্য়াপার। সাধারণত, শরীরে যখন প্রয়োজনের চেয়ে বেশি মিউকাস তৈরি হয়, তখনই বাড়তি মিউকাস নাক থেকে জলের আকারে বেরিয়ে যায়। সাইনাস ও মাইগ্রেনের সমস্যা থাকলে ঠান্ডা থেকে নানা ধরনের সংক্রমণ শুরু হয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যদি দেখেন রাতে ঘুমোতে গেলেই নাক বন্ধ হয়ে আসছে। ঘুম থেকে উঠেও নাক বন্ধ। সারা ক্ষণ মাথা ব্যথা, হাঁচি ও সর্দির সমস্যা লেগেই রয়েছে, তাহলে সতর্ক হতে হবে। ঘন ঘন ন্য়াজাল স্প্রে নেওয়ার অভ্য়াসও ছাড়তে হবে।

nasal spray addiction

কেন বন্ধ হয় নাক?

নাক বন্ধ হওয়ার অনেক কারণ আছে। তার মধ্যে একটি হল পলিপ। নাকে পলিপ থাকলে শোওয়ার সময়ে নাক বন্ধ হয়ে যায়। তখন বাধ্য হয়ে নাকের ড্রপ বা স্প্রে নিতে হয়। অনেকের ক্ষেত্রে অবস্থা গুরুতর হয়। সে ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াই একমাত্র রাস্তা।

শৈশবেই গাঁটের ব্যথা! জুভেনাইল আর্থ্রাইটিস থেকে কীভাবে সামলে রাখবেন বাচ্চাদের

কারণ আরও আছে। নাকের হাড় যাঁদের একটু বাঁকা, সামান্য ঠান্ডা লাগলেই ঘুমনোর সময় প্রায়ই তাদের নাক বন্ধ হয়ে শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়। বাজারচলতি নানা রকমের নাকের ড্রপ দিয়েই এই সমস্যার সহজ সমাধান মেলে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নাকের ড্রপ একটানা রোজ নিয়ে গেলে এক সময় তা অভ্যাসে পরিণত হয়ে যাবে ও এই ড্রপ ছাড়া কিছুতেই ঘুম আসবে না।  ঘুমের ওষুধের মতো বদভ্যাসে পরিণত হবে।

 Nasal Spray

 

নাকের স্প্রে নেওয়ার অভ্য়াস কীভাবে ছাড়বেন (Nasal Spray Addiction)?

নাকের স্প্রে-তে সাধারণত কোনও কড়া ডোজের ওষুধ থাকে না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নুন মেশানো জল থাকে। আর এই জল যাতে নষ্ট না হয়ে যায় তাই তাকে সংরক্ষণ করার জন্য় কিছু রাসায়নিক থাকে। এই ধরনের ড্রপ বা স্প্রের কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সাধারণত হয় না, তবে একটানা নিতে থাকলে তার প্রভাব পড়তে শুরু করে। তখন স্প্রে না নিলে নির্দিষ্ট সময় অন্তর নাক বন্ধ হয়ে যায়।

ড্রপ বা স্প্রে-র আসক্তি ছাড়াতে চিকিৎসকরা প্রথমেই বলেন নিয়মিত শরীরচর্চা করতে। তাতে শরীরে রক্ত সঞ্চালনে বাড়ে। বন্ধ নাকের সমস্যা কমে।

প্রাণায়ম করলেও স্প্রে বা ড্রপের উপর থেকে অনেকেরই নির্ভরতা কমে।

নাক দিয়ে জল টানলে সবচেয়ে বেশি উপকার মেলে। নাকের এক ছিদ্র বন্ধ করে অন্যটি দিয়ে জল টানতে হয়। তার পরে সেই জল মুখ দিয়ে ফেলে দিতে হয়।