প্রতিদিন সূর্য নমস্কার করুন, সারা শরীরের ব্যায়াম হবে, অসুখবিসুখ পালাবে

গুড হেলথ ডেস্ক

সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে অনেকেই দিন শুরু করেন সূর্য নমস্কারের মতো আসন দিয়ে। যদিও আসনটি দিনের যে কোনও সময়েই করা যেতে পারে।  তবে ভোরবেলা বা সকালে এই ব্যায়াম করলে তার উপকারিতা অনেক। যদি খোলা জায়গায় প্রকৃতির মাঝে সূর্য নমস্কার (Surya Namaskar) করা যায়, তাহলে শরীরের অনেক রোগব্যধি দূরে থাকে। বিশুদ্ধ অক্সিজেন শরীরে ঢুকে মন ও মস্তিষ্ককেও তরতাজা রাখে। অবসাদ-উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা থেকে রেহাই মেলে।

সূর্য নমস্কারের (Surya Namaskar) পদ্ধতি জানুন

সূর্য নমস্কার (Surya Namaskar) কী করে করতে হবে তার অনেক ছবি ও ভিডিও এখন ইন্টারনেটে পাওয়া যাবে। তবে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে প্রতিটা স্টেপ অভ্যাস করাই ভাল।  প্রতিটা স্টেপ নিখুঁত হলে তবেই উপকার পাওয়া যাবে।

আসন করার সময় পোশাক নির্বাচনের দিকেও নজর দিতে হবে। এমন পোশাক পরতে হবে যাতে হাত ও পা বারে বারে ওঠানামা করতে, শরীরের বিভিন্ন ভঙ্গিমা করতে অসুবিধা না হয়।

 প্রথমে হাত জোড় করে নমস্কার করার ভঙ্গিতে দাঁড়ান।

 SURYA NAMASKAR — Dragonfly Yoga Studio

এবার দুই হাতের তালু খুব জোরে চাপুন যাতে বুকের পেশি শক্ত হয়। এরপর অর্ধচন্দ্রাসনের ভঙ্গিতে হাত তুলে পেছনে বেঁকান।

তৃতীয় স্টেপে সামনে ঝুঁকে দুই হাতের তালু পায়ের সামনের মাটিতে রাখতে হবে। 

এই অবস্থায় হাঁটু ভেঙে বসে পড়ুন।

এবার সেইভাবে থেকেই ডান পা পেছনে সোজা করে দিন। এবার সেইভাবে শরীর টানটান রেখে মাথা তুলে সামনের দিকে তাকান (Surya Namaskar)। বাঁ পা পেছনে সোজা করে দিন।

surya-namaskar-gif-3 | Gympik Blog

এবার ডন বৈঠক করার ভঙ্গিতে হাতে চাপ দিয়ে শরীর নামিয়ে আনুন। ও অবস্থা থেকে ধীরে ধীরে উঠুন।

বাঁ পা পূর্বের ভঙ্গিমায় ভাঁজ করে সামনে নিয়ে আসুন। মাথা নামান। ডান পা ভাঁজ করে সামনে নিয়ে আসুন।

এবার নিতম্ব গোড়ালিতে লাগিয়ে বসুন। আবার নিতম্ব তুলে সোজা রেখে দুই হাতের তালু পায়ের সামনের মাটিতে নামিয়ে আনুন।

এবার হাত তুলে অর্ধচন্দ্রাসনের ভঙ্গিতে শরীরে পিছনে বেঁকান।

সেখান থেকে সোজা হয়ে হাত জোড় করে নমস্কার করার ভঙ্গিতে ফিরে আসুন।

এই পুরোটা হল একবার সূর্য নমস্কার (Surya Namaskar)। শ্বাসপ্রশ্বাস স্বাভাবিক রেখে অন্তত ৬ বার করতে হবে। সূর্য নমস্কার হল সারা শরীরের ওয়ার্কআউট। ফুসফুস থেকে হার্ট, লিভার, কিডনি–সব অঙ্গই ভাল থাকবে এই ব্যায়াম করলে। নিয়মিত সূর্য নমস্কার করলে অনেক জটিল অসুখের ঝুঁকিও কমে যায়।