তলপেটের নাছোড় ফ্যাট পিছু ছাড়ছে না কিছুতেই, কী কী ব্যায়ামে মেদ ঝরবে

গুড হেলথ ডেস্ক

তলপেটে নাভিমূলের নীচে জমে থাকা যে মেদের পোশাকি নাম ‘মাফিন টপ’, তার হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার রাস্তাটা মোটেই সহজ নয়। এটা জমতে যতটা সময় লাগে, যেতে লাগে তার চেয়ে অনেক বেশিদিন। বিশেষ করে যাঁদের সন্তান আছে এবং দিনের অনেকটা সময় বসেই কাটে, তাঁদের খুব ভোগায় এই ফ্যাটের (Belly fat) আস্তরণ। কিন্তু চেষ্টাচরিত্র করে হলেও নাছোড় ফ্যাটের হাত থেকে মুক্তি পেতেই হবে – কারণ তা না হলেই বাড়বে ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন, হার্টের অসুখের আশঙ্কা।

ফ্রিজের জল, দীর্ঘ ক্ষণ এসি-তে থাকা, একই জায়গায় অনেক ক্ষণ বসে থাকা অথবা অনেক ক্ষণ খালি পেটে থাকা এই অংশের মেদ বাড়ানোর প্রধান ভূমিকা পালন করে। ব্যস্ত জীবনে প্রতি দিন জিমে যাওয়ার উপায় থাকে না। তাই মেদ নিয়ে কপালে চিন্তার ভাঁজ থাকলেও তা কমানোর উপায় অবলম্বন করা যায় না।

 workouts to burn belly fat

ফিটনেস বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অত্যন্ত সহজ কিছু ব্যায়াম নিয়মিত অভ্যাস করলে তলপেটের মেদ কমে অনেকটাই। জেনে নিন তলপেটের মেদ দূর করার সেই সব সহজ ব্যায়াম, যা অভ্যাস করতে সময়ও লাগে কম, আলাদা করে কোনও উপকরণের প্রয়োজনও পড়ে না।

১) তলপেটের মেদ ঝরাতে প্রথমে চিত হয়ে শুয়ে থাকুন। দুই পা এক সঙ্গে উপরের দিকে তুলুন। কিছু ক্ষণ রাখুন এই ভাবে। হাঁটু যেন ভাঁজ না হয় একটুও। এর পর পা নামান। এ ভাবে বার দশেক করুন। প্রতি দিনে এর সংখ্যা বাড়ান। প্রতি সেট ১০ বার। চেষ্টা করুন ধীরে ধীরে তিন সেট করে অভ্যাস করতে। শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখবেন।

How to lose belly fat

২) প্লাঙ্ক বা ব্রিজ এক্সারসাইজ় আপনার কোর মাসল শক্তপোক্ত করে তোলে। কোরের শক্তি যত বাড়বে, তত কমবে পেটের ফ্যাট। প্লাঙ্ক অবস্থায় থেকেই সিজ়ার, টুইস্ট, সাইড থ্রো করা যায়। করতে পারেন সাইড প্ল্যাঙ্কও। প্রতি সেটে ২০টি করে তিন সেট করুন।

৩)  সোজা দাঁড়ান, পা থাকবে কাঁধ বরাবর। হাত রাখুন মাথার পিছনে। হাঁটুর কাছ থেকে অল্প ভেঙে নিয়ে টুইস্ট করুন দু’ পাশে। সোজা হয়ে দাঁড়ান, পা থাকবে কাঁধ বরাবর। মাথার পিছনে হাত রাখুন, কনুই ছড়ানো থাকবে। ডান পা তুলুন বুকের কাছ পর্যন্ত, বাম কনুই দিয়ে তা স্পর্শ করুন। আবার বাঁ পা তুলে সেটা ছুঁতে হবে ডানদিকের কনুই দিয়ে। এইভাবে ৫০ কাউন্ট করুন।

৪) চিত হয়ে শুয়ে সাইক্লিং করার মতো করে পা ঘোরান। এতে তলপেটের সঙ্গে ভারী কোমরের সমস্যাও মিটবে। এ ক্ষেত্রেও ১০ বারে একটি সেট। দুই থেকে তিনটি সেট করার চেষ্টা করুন।

৫) চিত হয়ে শুয়ে পা দু’টিকে এক সঙ্গে তেরচা করে (মোটামুটি ৪৫ ডিগ্রি কোণ করে) রাখুন। কিছু ক্ষণ এ ভাবে রাখুন। তার পর স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনুন পা।