চুল পড়া একদম বন্ধ হয়ে যাবে, ঘরেই বানান ‘এবিসি জুস’

গুড হেলথ ডেস্ক

মা-দিদিমার পুরনো ছবি দেখলে মনে সাধ হয় যদি আমাদেরও এ রকম ঢাল চুল (Hair Health) হত। পিঠের উপর দিয়ে বেয়ে কোমর পর্যন্ত ঢেউ খেলানো কালো ঘন চুল এখন দুর্লভ। দৈনন্দিন ব্যস্ততার মাঝখানে যা সময় পাওয়া যায় নিজের জন্য, তাতে চুল অথবা ত্বক কোনওটার সঠিক যত্ন (Hair Care) নেওয়া হয় না। চুল হয়ে ওঠে প্রাণহীন, রুক্ষ-শুষ্ক। আর শীতের সময়টাতে তো বটেই। মাথায় চিরুনি ঠেকালেই গোছা গোছা চুল পড়তে থাকে।

শীত হোক বা গ্রীষ্ম, চুল ভাল থাকবে এমন কী করা উচিত? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু চুলে প্যাক লাগালে হবে না, ডায়েটেও রাখতে হবে এমন কিছু যাতে চুল পড়া বন্ধ হয়ে যায়। তার জন্য বাড়িতে বানাতে পারেন ‘এবিসি জুস’।

hair health

এবিসি জুস কী?

পুষ্টিবিদেরা বলছেন, এবিসি অর্থাৎ আপেল, বিট এবং ক্যারট। আপেল, বিট এবং গাজরের রস মিশিয়ে খেলেই চুল পড়া বন্ধ হবে। আমাদের চুল তৈরি হয় কেরাটিন আর অ্যামাইনো অ্যাসিড দিয়ে। চুলের স্বাস্থ্য ভাল (Hair Health) রাখতে তাই প্রয়োজনীয় প্রোটিন দরকার হয়। কিন্তু আমরা অত্যধিক কেমিক্যাল ব্যবহার করি বলে চুলের প্রোটিন নষ্ট হতে থাকে (Hair Care)। তাছাড়া দূষণ, আবহাওয়ার বদলের কারণেও চুলের স্বাস্থ্য় খারাপ হয়। সে জন্য ডায়েটে এমন কিছু রাখতে হবে যাতে চুলের স্বাস্থ্য ভাল থাকে।

Hair Health

আপেলে আছে ভিটামিন এ, বি এবং সি। এই প্রতিটি ভিটামিন অ্যান্টি অক্সিড্যান্টের কাজ করে। অ্যান্টি অক্সিড্যান্ট উপাদান শরীরে ফ্রি ব়্যাডিকালস তৈরি করতে বাধা দেয়। আপেলে থাকা ভিটামিন মাথার স্ক্যাল্প ভাল রাখে, নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে।

বিটে আছে ভিটামিন ৬, পটাশিয়াম এবং ভিটামিন সি। এছাড়াও রয়েছে ভিটামিন এ। এই প্রত্যেকটি উপাদান স্ক্যাল্পের রক্ত সঞ্চালন বাড়াতে সাহায্য করে।

গাজরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং ই আছে। প্রত্যেকটি ভিটামিনই চুলের জন্য খুব খুব ভাল। গাজরে থাকা পটাশিয়াম চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

এবিসি জুস প্রতিদিন অন্তত একবার করে খাওয়া যেতে পারে। ব্রেকফাস্টের সময় খেতে পারেন বা লাঞ্চের আগেও খাওয়া যায়। নিয়মিত এই জুস খেলে চুলের স্বাস্থ্য ফিরে যাবে।