বাচ্চাদের সাঁতার শেখা কতটা জরুরি, স্বাস্থ্যের কী কী উন্নতি হয় বলছেন ডাক্তারবাবুরা

গুড হেলথ ডেস্ক

এখনকার দিনে বাচ্চারা বাইরে বেরিয়ে খেলাধূলা কমই করে। পড়াশোনার বাইরের সময়টা মোবাইল, ল্যাপটপে বুঁদ হয়েই কাটে। ফলে এখন ছোট থেকে বাচ্চাদের নানানটা অসুখ বিসুখ। ওবেসিটিতে আক্রান্ত অধিকাংশ বাচ্চাই। তাছাড়া অ্যাসিড রিফ্লাক্স, ডায়াবেটিস, হাই কোলেস্টেরল, হাইপারটেনশনের মতো রোগ  এখন বাচ্চাদেরও হচ্ছে। ডাক্তারবাবুরা বলছেন, ছোট থেকেই বাচ্চাকে শারীরিক ভাবে বলিষ্ঠ করতে চাইলে সাঁতার শেখানো খুবই জরুরি। সাঁতারে সারা শরীরের ব্যায়াম হয়। পেশিশক্তি বাড়ে, বুদ্ধির বিকাশ হয়, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও জন্মায়।

শহরের অধিকাংশ মানুষই সাঁতার (Swimming) জানেন না। আগে ছোট থেকেই মা-বাবারা ধরেবেঁধে নিয়ে গিয়ে সাঁতার শেখাতো। গ্রাম বা মফস্বলে বাচ্চারা ছোট থেকেই পুকুর, নদীতে দাপাদাপি করে সাঁতার শিখে নেয়। কিন্তু শহরে সে সুযোগ কম। আর এখন শহর মানেই আধুনিক সুইমিং পুল। সেখানে প্রশিক্ষিত ট্রেনাররা সাঁতার শেখান। ডাক্তারবাবুরা বলছেন, পুকুর হোক বা সুইমিং পুল সাঁতার শিখলেই হল। এতে যেমন শরীর ভাল থাকে তেমনই জলে ডুবে যাওয়ার ভয়ও কমে। আজকাল জলে ডুবে মৃত্যুর ঘটনা অনেক বেড়েছে।

children learning to swim

সাঁতার জানলে বাচ্চাদের কোন কোন দিকে উপকার হয়

 

সাঁতারে শরীরের একাধিক পেশি একসঙ্গে কাজ করে। স্রোতের সঙ্গেই হোক বা বিপরীতে, পেশির অনেকটা শক্তি যায় সাঁতারে। তার ফলে নানা ধরনের ব্যথা, যন্ত্রণায় আরাম দিতে পারে সাঁতার। অনেক ধরনের পেশি আরাম পায়। হাড়ে ব্যথা, আর্থারাইটিসের সমস্যা থাকলেও কমে।

সাঁতার কাটলে পেশি, হাড়, হার্ট সব সুস্থ থাকে। তাই দিনে অন্তত ৩০ মিনিট সাঁতার কাটলে অনেক অসুখবিসুখের ঝুঁকি কমবে।

ওয়েট ট্রেনিং বাড়িতে করতে চান, নিয়ম শেখাচ্ছেন ফিটনেস বিশেষজ্ঞরা

Swimming

শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। তার ফলে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ে। সঙ্গে বাড়ে কর্মক্ষমতা।

বাচ্চার হাঁপানি থাকলে সাঁতার খুব উপকারি। অনেকেরই হাঁপানির টান ওঠে, ফুসফুসের সংক্রমণ বাড়লে তা মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছয়। সেক্ষেত্রে নিয়মিত সাঁতার কাটলে ফুসফুসের জোর বাড়বে। হাঁপানি অনেক নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

মানসিক অবসাদ বা উদ্বেগজনিত সমস্যা থাকলেও সাহায্য করতে পারে নিয়মিত সাঁতার কাটার অভ্যাস। কারণ সাঁতার কাটলে শরীরে এন্ডরফিন নামক একটি হরমোন তৈরি করে। এই হরমোন মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। মন ভাল করে।

সাঁতার কাটলে ওজন কমে। বাচ্চার ওজন অনেক বেড়ে গেলে, ওবেসিটিতে ভুগলে সাঁতার অবশ্যই শেখানো উচিত।