টম্যাটো ফ্লু নিয়ে সতর্কতা জারি, রাজ্যগুলিকে গাইডলাইন মেনে চলার নির্দেশ কেন্দ্রের

দেশের কয়েকটি রাজ্যে টম্যাটো ফ্লু (Tomato Flu) ছড়িয়ে পড়েছে। দক্ষিণ ভারতে আক্রান্ত অন্তত ৮২ জন। কেরল, তামিলনাড়ু, হরিয়ানা ও ওড়িশায় টম্যাটো জ্বরের প্রকোপ বেশি। বাচ্চাদেরই উপসর্গ বেশি দেখা যাচ্ছে। ধূম জ্বরের সঙ্গে সারা গায়ে লালচে বড় বড় ফোস্কা এই রোগ চেনার প্রধান উপায়। সাধারণ ভাইরাল জ্বর বা ডেঙ্গির সঙ্গে টম্যাটো ফ্লু-এর ফারাক এখানেই। টম্যাটো জ্বরে সারা শরীরে লা লা ফোস্টা পড়ে যায়। হাতের তালু ও পায়ের পাতাতেও ফোস্কা পড়ে।

টম্যাটো জ্বরের (Tomato Flu) সংক্রমণ ক্রমেই ছড়াতে শুরু করেছে। একে তো করোনা, ডেঙ্গি, ম্যালেরিয়া নিয়ে নাজেহাল হতে হচ্ছে, তার ওপরে গোদের ওপর বিষফোঁড়ার মতো রয়েছে মাঙ্কিপক্স। এর মধ্যে টম্যাটো জ্বর নিয়ে সতর্কতা জারি হয়েছে। রাজ্যগুলিকে এখন থেকেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে রাখতে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, টম্যাটো ফ্লু-এর সঙ্গে করোনা, ডেঙ্গি, ম্যালেরিয়া, মাঙ্কিপক্স ও চিকুনগুনিয়ার কোনও সম্পর্কই নেই। এই ভাইরাসঘটিত অসুখ সম্পূর্ণ আলাদা। মনে করা হচ্ছে, এন্টারোভাইরাসের  (enteroviruses) পরিবারের কোনও ভাইরাল স্ট্রেন এই সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। ১ থেকে ১০ বছরের শিশুরা রয়েছে হাই-রিস্ক গ্রুপে। সংক্রমণের ৫-৭ দিন অবধি উপসর্গ থাকছে শরীরে। ওই সময়টা আইসোলেশনে থাকারই পরামর্শ দিচ্ছেন স্বাস্থ্য আধিকারিকরা।

Tomato flu

কেন্দ্রের গাইডলাইনে কী কী বলা হয়েছে?

সমস্ত রাজ্যকে টম্যাটো জ্বর (Tomato Flu)  মোকাবিলার জন্য প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো তৈরি রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বাচ্চাদের ট্রিটমেন্টের ব্যবস্থা থাকতে হবে, বেড বাড়াতে হবে হাসপাতালগুলিতে।

আক্রান্তকে অন্তত ৫-৭ দিন আইসোলেশনে থাকতেই হবে।

Tomato Flu

টম্যাটো ফ্লু-এর সংক্রমণ ঠেকাতে বাড়ির আশপাশে আবর্জনা জমতে দেওয়া যাবে না। পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে।

রাস্তায় বেরলে বা আক্রান্তের কাছাকাছি গেলে অথবা আক্রান্তের দেখাশোনা করতে হলে ফেস মাস্ক অবশ্যই পড়তে হবে।

বাচ্চাদের জামাকাপড় পরিষ্কার রাখতে হবে। বাসি জামাকাপড়, ভিজে ন্যাপি থেকে সংক্রমণ ছড়াতে পারে।

শরীরের তাপমাত্রা আচমকাই বেড়ে যাওয়া, গায়ে ব়্যাশ, মুখ ও গলা ফুলে যাওয়া, খিদে না পাওয়ার মতো উপসর্গ (Tomato Flu) দেখা দিলেই কোনওরকম ঝুঁকি না নিয়ে অবিলম্বে পরীক্ষা করানো উচিত।

Tomato Flu

স্কুল খুলে যাওয়ার পরে অনেক বাচ্চাই সংক্রমিত হচ্ছে। সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া আটকাতে পরিচ্ছন্নতা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিকল্প নেই বলেই জানাচ্ছেন ডাক্তারবাবুরা।

নির্দিষ্ট কিছু সতর্কতা বজায় রাখলেই নিয়ন্ত্রিত হতে পারে এই রোগের প্রকোপ। উপসর্গ ভিত্তিক চিকিৎসার পাশাপাশি রোগীকে প্রচুর পরিমাণে জল খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন ডাক্তারবাবুরা। বাচ্চাদের গায়ে ফোস্কা বের হলে, খেয়াল রাখতে হবে যেন তারা কোনও ভাবেই ফোস্কাগুলি না চুলকে ফেলে। চুলকালে ক্ষতস্থানে বিভিন্ন ধরনের সংক্রমণ ছড়াতে পারে।