ডেঙ্গি ভ্যাকসিন বানিয়েছে জাপান, ট্রায়াল দেখে অনুমতি দিয়েছে মার্কিন এফডিএ

গুড হেলথ ডেস্ক

ডেঙ্গি অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠছে। ডেঙ্গির তিন নম্বর সেরোটাইপ বা ডেনভি-৩ ভাইরাসের মিউটেশন হচ্ছে বলে আশঙ্কা করেছেন বিজ্ঞানীরা (Dengue Vaccine)। ডেঙ্গির এই প্রজাতি সবচেয়ে বেশি ভয়ানক। ডেঙ্গি ঠেকাতে তাই ভ্যাকসিন নিয়ে আসার চেষ্টা করছেন বিজ্ঞানীরা। জাপানের বিজ্ঞানীরা এই কাজে অনেকটাই এগিয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে।

জাপানিজ ফার্মাসিউটিক্যাল টাকেডা তৈরি করেছে ডেঙ্গির প্রতিষেধক (Dengue Vaccine)। জাপানি বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, এই ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়ালে সাফল্য পাওয়া গেছে। ভ্যাকসিনে অনুমোদন দিয়েছে আমেরিকার ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ)।

জাপানি বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ডেঙ্গির ভাইরাসকে কাবু করতে ভাইরাল স্ট্রেন দিয়েই ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেট বানানো হয়েছে। এর নাম TAK-003। ডেঙ্গি ভাইরাসের সেরোটাইপ ২ এই প্রজাতির স্ট্রেন নিয়ে তৈরি হয়েছে ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেট। ভাইরাল স্ট্রেনকে ল্যাবরেটরিতে নিষ্ক্রিয় করে ভ্যাকসিন বানানো হয়েছে। এই নিষ্ক্রিয় স্ট্রেন মানুষের শরীরে ঢুকলে সংক্রমণ ছড়াবে না, কিন্তু শরীরের ইমিউন সিস্টেমকে সক্রিয় করে তুলবে। তখন ভাইরাসকে ঠেকাতে অ্যান্টিবডি তৈরি হবে শরীরে। ৪ বছর থেকে ৬০ বছর বয়স অবধি এই ভ্যাকসিন দেওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

আমেরিকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথের সহযোগিতায় ডেঙ্গির টিকা তৈরি করছে ভারতও। দেশে এই টিকার ট্রায়াল করার অনুমতি পেয়েছে ইন্ডিয়ান ইমিউনোলজিক্যালস লিমিটেড (আইআইএল)। কলকাতায় ডেঙ্গি (Dengue) টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করবে নাইসেড। প্যানাসিয়া বায়োটেক লিমিটেড এবং সানোফি ইন্ডিয়া প্রাইভেট লিমিটেড নামক দু’টি সংস্থাও ডেঙ্গির টিকার ক্লিনিকাল ট্রায়ালের অনুমতি পেয়েছে৷ যার মধ্যে প্যানাসিয়া বায়োটেক লিমিটেড প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শেষ করেছে। সানোফি ইন্ডিয়া প্রাইভেট লিমিটেডের টিকা আমেরিকায় অনুমোদনও পেয়ে গেছে।