ডিহাইড্রেশন ভোগাচ্ছে? এমন কিছু খাচ্ছেন না তো যা শরীরে জল কমিয়ে দিচ্ছে

গুড হেলথ ডেস্ক

গরমে শরীরে জলের প্রয়োজন বেশি হয়। কিন্তু সে দিকে খেয়াল না রাখার ফলে ডিহাইড্রেশনের শিকার হন অনেকেই। কিন্তু শুধু গরমের কারণেই এমনটা হয়, তা ঠিক নয়। জ্বর, ডায়েরিয়া বা কোনও কারণে বারবার বমি হলেও ডিহাইড্রেশন হতে পারে। এ ছাড়া অতিরিক্ত ব্যায়াম করলেও শরীরে জলের অভাব দেখা দিতে পারে।

এখন ঘরে ঘরে জ্বর। করোনার সঙ্গেই হানা দিচ্ছে ভাইরাল ফিভার। ডিহাইড্রেশনও ভোগাচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আমাদের রোজের ডায়েটে এমন কিছু খেয়ে ফেলছি আমরা যা শরীরে জলের পরিমাণ কমিয়ে দিচ্ছে। তাই সেদিকে একটু নজর দিতে হবে।

ডিহাইড্রেশন হলে গলা শুকিয়ে যেতে থাকে অনবরত। তেষ্টা পায় ঘনঘন। প্রস্রাব কমে যায়। প্রচণ্ড ক্লান্ত লাগে। শুকনো হয়ে যায় ত্বক। ঝিমুনি, সামান্য কারণেই বিরক্তির মতো কিছু লক্ষণ দেখা দেয়। মাত্রাতিরিক্ত ডিহাইড্রেশনের ক্ষেত্রে সংজ্ঞা হারানো, বুক ধড়ফড়, রক্তচাপ কমে যেতে পারে। তাই সাবধান হতেই হবে।

ডিহাইড্রেশন ভোগালে কী কী খাবেন না

এনার্জি ড্রিঙ্ক বেশি খেলে ডিহাইড্রেশন হয়। এনার্জি ড্রিঙ্কে প্রচুর পরিমাণ চিনি থাকে যা অন্ত্রে চাপ তৈরি করে। শরীরে জলের পরিমাণ কমিয়ে দেয়।

 Dehydration

গরমকালে গলা ভেজানোর জন্য অনেকেই ডায়েট সোডা বা শর্করাজাতীয় নরম পাণীয় খেয়ে থাকেন। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এতে হয়তো সাময়িকভাবে তৃষ্ণা মেটে। কিন্তু শরীরে জলের ঘাটতি থেকেই যায়।

অফিসে বা কাজের মধ্যে থাকলে সারাদিনে প্রচুর পরিমাণে চা বা কফি খাওয়ার অভ্যাস থাকে অনেকের। অতিরিক্ত চা বা কফি খেলে ডিহাইড্রেশন হতে পারে।

ডিহাইড্রেশনের আরও একটা কারণ হচ্ছে উচ্চমাত্রার প্রোটিনযুক্ত খাবার খাওয়া। ডিহাইড্রেশন এড়াতে শরীরে কার্বোহাইড্রেট ও প্রোটিন গ্রহণের অনুপাত ঠিক রাখতে হবে।

 dehydration

ডিপফ্রায়েড খাবার বা বেশি ভাজাভুজি খেলে জলতেষ্টা পায়। বেশি ভাজা খাবার স্বাস্থ্যের জন্যও উপকারি নয়।

উচ্চমাত্রার সোডিয়ামযুক্ত খাবার খেলে শরীরে জলের ভারসাম্য নষ্ট হয়। তাই বেশি নুন খেতে বারণ করে।