Male Infertility: বেশি টেনশন করেন? অতিরিক্ত স্ট্রেস, ধূমপানও বন্ধ্যত্বের কারণ হতে পারে

অফিস থেকে ফিরেই কাজ নিয়ে টেনশন করেন? রোজকার কাজের চাপ নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে? সবসময়েই স্ট্রেসে থাকেন? তাহলে সতর্ক হতেই হবে। মানসিক চাপ, উদ্বেগ, অ্যাংজাইটি ক্রনিক হয়ে গেলে তা শরীরের ওপর নানাভাবে প্রভাব ফেলে (Male Infertility)। টেনশন হলেই ঘন ঘন সিগারেটে সুখটান দেন অনেকেই। এতে স্ট্রেস কমবে বলে ভুল ধারণা আছে বেশিরভাগেরই। তাতে হিতে বিপরীতই হয়। একেই মানসিক চাপ ও ধূমপানের প্রবণতা দুটোই শুক্রাণুর ক্ষতি করে। পুরুষ বন্ধ্যত্বের সম্ভাবনা কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয়।

পুরুষ বন্ধ্যত্বের (Male Infertility) অনেক কারণ আছে। তার মধ্যে মানসিক চাপ ও টেনশন অন্যতম কারণ। এর সঙ্গেই আছে অতিরিক্ত ধূমপানের অভ্যাস। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ইনফার্টিলিটি বা ইরেকটাইল ডিসফাংশনে যাঁরা ভোগেন তাঁদের বেশিরভাগকেই দেখা গেছে, দিনে ১৬ থেকে ১৮ ঘণ্টা কাজ করেন। বাড়ি ফিরেও ডেডলাইন নিয়ে কাজ করেন। সঠিক সময় খাওয়া নেই, পর্যাপ্ত ঘুম নেই, দিনভর শরীরে ক্লান্তি থাকে। ডেডলাইনের চক্করে তাঁদের মাথায় কাজ ছাড়া আর কিছুই থাকে না। তার পর আর শারীরিক সম্পর্কের ইচ্ছেও থাকে না। ফলে দাম্পত্যেও সমস্যা শুরু হয়। যার থেকেও মানসিক চাপ বাড়ে।

Male infertility

মানসিক কারণ

পুরুষ বন্ধ্যত্বের (Male Infertility) প্রায় ৯৫ শতাংশ কারণ মানসিক। এমনটাই বলছেন বিশেষজ্ঞরা। অনেকক্ষেত্রে দেখা যায় কাজের সূত্রে স্বামী-স্ত্রীর দেখাই কম হচ্ছে। বা চাকরির খাতিরে দুই জনে দুই জায়গায় থাকেন, তাঁদেরও এই ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। তাছাড়া সাইকোলজিক্যাল সমস্যাও থাকে। শারীরিক সম্পর্কে স্বচ্ছন্দ থাকেন না অনেকেই। স্ত্রী ব্যথা পেতে পারেন ভেবে যৌন সম্পর্কে ভয় পান অনেকেই। আবার অনেকের ধারণা থাকে তাঁরা অক্ষম। সেই কারণেও হীনমন্যতা তৈরি হয়।

Nutrition• Gastric Cancer: কাজের চাপে নাওয়া খাওয়ার সময় নেই? পেট ভরাচ্ছেন ফাস্ট ফুডেই? তাহলে কিন্তু সাবধান!

male infertility

শারীরিক কারণ

মানসিক চাপ তৈরি হতে হতে তা শরীরেও ছাপ ফেলতে শুরু করে। স্থূলত্ব বা ওবেসিটি যেমন পুরুষ ও মহিলা উভয়েরই ইনফার্টাইল (Male Infertility) হওয়ার বড় কারণ, তেমনি জীবনযাপনে কিছু অসংযম, খাদ্যাভ্যাস, ধূমপান-অ্যালকোহলের নেশা, শরীরচর্চায় অনীহা, অবসাদ-স্ট্রেস-উৎকণ্ঠা এবং নানা রকম ওষুধ খাওয়ার প্রবণতাও বন্ধ্যত্বের সমস্যাকে বাড়িয়ে তোলে। এইসব কিছুর সঙ্গেই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যোগ আছে ডায়াবেটিসের। বিশেষজ্ঞরা বলেন, টাইপ-১ ও টাইপ-২ দুই ধরনের ডায়াবেটিসই ইনফার্টিলিটির জন্য দায়ী। পুরুষদের টেস্টোস্টেরনের সমস্যা, ইরেকটাইল ডিসফাংশন, রিটার্ডেড ইজাকুলেশন, রেট্রোগ্রেড ইজাকুলেশন, শুক্রাণু বা স্পার্মের সংখ্যা কম, মানও খারাপ, হাইপোগোনাডিজম (টেস্টোস্টেরনের সংখ্যা কম)– এসবের কারণ হতে পারে নানারকম কো-মর্বিডিটি।

 male infertility

 

লাইফস্টাইল ম্যানেজমেন্ট জরুরি

জীবনযাপনে সংযম জরুরি। লাইফস্টাইল ম্যানেজমেন্ট বন্ধ্যত্বের সমস্যা দূরে রাখতে পারে। কিছু ওষুধ খেলে বন্ধ্যত্ব তৈরি হতে পারে। তাই কখনওই ডাক্তারকে না জানিয়ে কোনও ওষুধ নিজে নিজেই খেয়ে নেবেন না। ওজন বেশি হলে সহবাসে অক্ষমতা তৈরি হতে পারে। তাছাড়া বেশি ওজনের জন্য শুক্রাণুও ত্রুটিযুক্ত হয়। তার থেকে গর্ভপাতের ঝুঁকি বাড়ে। খেলতে গিয়ে কুঁচকি বা জননাঙ্গে আঘাত লাগলেও সমস্যা হতে পারে। তাই এ রকম সমস্যা যদি হয়ে থাকে, অবশ্যই ডাক্তার দেখিয়ে নেবেন। মদ্যপান করলে সহবাসের অক্ষমতা তৈরি হতে পারে। সুতরাং সেটাও মাথায় রাখতে হবে। ধূমপান করলে স্পার্ম কাউন্ট কমে যেতে পারে।  পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস করুন। ভিটামিন-সি, ভিটামিন-ই আর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট আছে, এ রকম খাবার প্রচুর পরিমাণে খান।