হার্ট অ্যাটাকের মোক্ষম দাওয়াই ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, ঠেকাবে অকাল মৃত্যুও

গুড হেলথ ডেস্ক

হার্ট অ্যাটাকে হঠাৎ মৃত্যু, স্ট্রোক, স্নায়ুর রোগ বা ক্যানসার—অসুখ যত জটিলই হোক না কেন শরীরের লড়াইটা অ্যাটি অ্যাসিড ছাড়া প্রায় অসম্পূর্ণ। ওমাগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড যত বেশি ঢুকবে শরীরে, অসুখবিসুখের বিরুদ্ধে ঢালটাও ততটাই মজবুত হবে। কার্ডিওভাস্কুলার রোগ হোক বা গাঁটে গাঁটে ব্যথা, চোখের সমস্যা হোক বা মানসিক অবসাদ, যে কোনও রোগ শরীরে জমিয়ে বসার আগে সুরক্ষা কবচটা তৈরি করে দেয় এই ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড।

সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, রোগে ভুগে অকাল মৃত্যু থেকে বাঁচাতে পারে এই ফ্যাটি অ্যাসিড। রক্তে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের মাত্রা যত বেশি হবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ততটাই বাড়বে। গবেষণা বলছে, হার্টের যে কোনও রোগ, ক্যানসারের মতো মারণ রোগের ঝুঁকি কমাতে পারে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড।

omega-3 fatty acids

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যেহেতু অন্যান্য ফ্যাটের মতো শরীর ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড আলাদা করে শরীর তৈরি করতে পারে না, তাই এই ধরনের ফ্যাটি অ্যাসিডকে বাইরের খাবারদাবার বা ক্যাপসুল থেকেই গ্রহণ করতে হয়। স্যামন, টুনা-সহ নানা সামুদ্রিক মাছে এই ফ্যাটি অ্যাসিড বিপুল পরিমাণে থাকে। সামুদ্রিক মাছই এর প্রধান উৎস হলেও আলফা লিনোলেনিক অ্যাসিড গোত্রের ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায় উদ্ভিজ্জ উপাদানে।

15 omega-3-rich foods: Fish and vegetarian sources

ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড শরীরে নানাভাবে কাজ করে। রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড বা ফ্যাটের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। বাড়তি ওজন যেমন নিয়ন্ত্রম করে তেমনি স্বাস্থ্যেরও খেয়াল রাখে। ডিএইচএ জাতীয় ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের অভাবে চোখের নানা সমস্যা হতে পারে। রেটিনার রোগ বা ক্ষীণ দৃষ্টির সমস্যা ভোগাতে পারে। গাঁটে গাঁটে ব্যথা, আর্থ্রাইটিসের যন্ত্রণা কমাতেও এই ফ্যাটি অ্যাসিডের উপযোগিতার কথা বলেন বিশেষজ্ঞরা। সামুদ্রিক মাছে থাকা ইপিএ ও ডিএইচএ ওমেগা-৩ তেল শরীরে ইকসিনয়েড হরমোন তৈরি রুখতে পারে। এই হরমোনের প্রভাবে রক্ত জমাট বেঁধে শিরা ফুলে যায়। রক্ত সঞ্চালন বাধা পায়। অনেক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, সামুদ্রিক মাছ ফুসফুসের স্বাস্থ্য ভাল রাখে। বাচ্চাদের হাঁপানি রোধ করতে পারে। এই করোনা কালে ফুসফুস ভাল রাখতে অবশ্যই ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের দরকার আছে। তার জন্য মাছ খেতে হবে, সাপ্লিমেন্টও নেওয়া যেতে পারে তবে ডাক্তারের পরামর্শ মতো।

 Omega-3 Supplements Heart-Healthy

মানসিক স্বাস্থ্যের ওপরেও ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের প্রভাব আছে। চিন্তাভাবনা, মনে রাখার ক্ষমতা, অবসাদ কাটানো এইসব কিছুই নিয়ন্ত্রণ করতে পারে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। মস্তিষ্কে সিরোটোনিন, ডোপামাইন হরমোনের ক্ষরণ নিয়ন্ত্রণ করে। এই দুই হরমোনের অভাব হলেই অবসাদ বাড়ে। ডোপামাইন হার্ট ও মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালনে সাহায্য করে। তাই মাছ খেলে মনও ভাল থাকে বলে জানাচ্ছেন গবেষকরা।

ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড প্রি-ম্যাচিওর বা প্রি-টার্ম ডেলিভারির ঝুঁকি কমাতে পারে। গবেষকরা জানিয়েছেন, গর্ভকালীন সময় নিয়মিত ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সাপ্লিমেন্ট নিলে প্রি-ম্যাচিওর ডেলিভারির ঝুঁকি কমে প্রায় ৪২ শতাংশ। কম ওজনের শিশু জন্মের সম্ভাবনা কমে প্রায় ১০ শতাংশ। তবে যে কোনও সাপ্লিমেন্টই ডাক্তার বা বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ মেনেই নেওয়া উচিত।