Paracetamol: জ্বর হলেই প্যারাসিটামল খেয়ে ফেলছেন? বাচ্চাদেরও খাওয়াচ্ছেন, কী ক্ষতি হচ্ছে

গুড হেলথ ডেস্ক

ভ্যাপসা গরমের পরেই বৃষ্টি। ঠান্ডা-গরম লেগে সর্দি-কাশি-জ্বর লেগেই আছে। সঙ্গে আছে ডেঙ্গি আর ম্যালেরিয়ার জীবাণুরাও। জ্বর হলেই গাদা গাদা প্যারাসিটামল (Paracetamol) খেয়ে ফেলি আমরা অনেকেই। ডাক্তারি ডোজ না মেনেই জ্বর না কমা অবধি ওষুধ খেয়ে যেতে থাকি। এর ফলও হয় মারাত্মক।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শরীরের তাপমাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই প্যারাসিটামল (Paracetamol) খেয়ে ফেলি আমরা। কিন্তু শরীরের তাপমাত্রা ১০১ ডিগ্রি না ছাড়ালে জ্বরের ওষুধ না খাওয়াই ভাল। ভাইরাল ফিভার নিজে থেকেই সেরে যাওয়ার কথা। প্রয়োজন কেবল বিশ্রাম আর পর্যাপ্ত জলীয় খাবার। জ্বর কিন্তু নিজে কোনও অসুখ নয়, উপসর্গ। শিশু ও বয়স্কদের মধ্যে জ্বরের ঝুঁকি বেশি। এ ছাড়া অন্যান্য ক্রনিক অসুখ যেমন ডায়বেটিস, ক্রনিক কিডনির অসুখ, অ্যানিমিয়া-সহ নানা রোগ আছে, তাদের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা দুর্বল বলে জ্বরের ঝুঁকি বেশি। সেক্ষেত্রে লাইফস্টাইলে বদল ঘটিয়ে, শরীরের রোগ প্রতিরোধ বাড়িয়ে অসুকের মোকাবিলা করা যেতে পারে। ঘরোয়া অনেক উপায়ও আছে যা কাজে দেয়।

 paracetamol

সাধারণ জ্বর হলে গা হাত পা ব্যথা কমাতে অনেকেই আইব্রুফেন বা অ্যাসপিরিন জাতীয় ব্যথার ওষুধ খান। কিন্তু এসব ওষুধ একেবারেই স্বাস্থ্য়কর নয়। অনেক সাইড এফেক্টস থাকে। ডাক্তারবাবুরা বলছেন, প্রাপ্তবয়স্কদের ৫০০ মিলিগ্রাম প্যারাসিটামলের (Paracetamol) একটি অথবা দুটি ট্যাবলেট দিনে চারবার দেওয়া যেতে পারে। এর বেশি ওষুধ শরীরের ক্ষতি করতে পারে। পরীক্ষা করে দেখা গেছে, এই ওষুধ বেশি খেলে লিভারের ওপর চাপ পড়ে। তবে ডাক্তারি ডোজে খেলে ভয়ের কারণ নেই।

Summer Tips: এসি লাগবে না, প্রচণ্ড গরমেও শরীর ঠান্ডা রাখুন এইসব উপায়ে