Pumpkin: কুমড়ো খেতে বিরক্তি লাগে? গুণ কত জানলে কদর করবেন আপনিও

গুড হেলথ ডেস্ক

রবিবারের সকাল মানেই ফুলকো লুচি আর আলু-কুমড়োর (Pumpkin) তরকারি। প্রসিদ্ধ কচুরির দোকানের তরকারিতেও কুমড়োর ছক্কা প্রায়শই দেখা যায়। অনেকেই কুমড়ো খেতে বড় ভালবাসেন। আবার নাক সিঁটকানো পাবলিকও কম নেই। তবে স্কোয়াশ পরিবারের অন্তর্গত বড় গোলাকার কুমড়োর খাদ্যগুণ কিন্তু ঢের বেশি। ভিটামিন , মিনারেলস ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্টে ভরপুর কুমড়োর পুষ্টিগুণ অনেক।

চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে
কুমড়োতে (Pumpkin) প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ ও ক্যারটিনয়েড থাকে, যা আমাদের চোখের সুষ্পষ্ট দৃষ্টি ধরে রাখে। ছানি পড়া ও যে কোনও বয়সে বিভিন্ন চোখের সমস্যা থেকে আমাদের রক্ষা করে।

Pumpkin

ওজন নিয়ন্ত্রণ করে
কুমড়ো (Pumpkin) নিজে মোটাসোটা গোলগাল হলেও আপনাকে সে ফুলতে দেবে না। অন্যান্য অনেক সবজির তুলনায় পুষ্টিগুন কুমড়োয় অনেকটাই বেশি, অথচ ক্যালরির পরিমাণ বেশ কম, ফলে কুমড়ো খেলে কম ক্যালোরি ইনটেক করে বেশি মাত্রায় পুষ্টি পাওয়া যায়, যার জন্য ওজন বাড়ার ভয় থাকে না। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে তাই প্রতিদিন ডায়েটে কুমড়ো রাখা যেতে পারে।

হজম শক্তি বৃদ্ধি করে
কুমড়োতে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার থাকে, যা হজম ও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। হজমশক্তিও বাড়ায়।

Pumpkin

ক্যানসার প্রতিরোধে সহায়তা করে
কুমড়ো প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদানে সমৃদ্ধ, যার ফলে বিভিন্ন ইনফেকশন ও ক্যানসার প্রতিরোধেও কার্যকরী কুমড়ো।

হৃদয়ের স্বাস্থ্য ভাল রাখে
নিয়মিত কুমড়ো খেলে আমাদের শরীরে কোলেস্টরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে। এছাড়াও কুমড়োয় উপস্থিত পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়ামের মতো খনিজ হাইপারটেনশন এবং হৃদরোগ প্রতিরোধ করে।

রোগ-জ্বালা থেকে বাঁচায়
কুমড়ো হল নানান প্রয়োজনীয় ভিটামিনের স্বর্ণখনি। ভিটামিন এ, ক্যারোটিন, জ্যানথিন, জিয়াজ্যানথিন ঠাসা এতে। যা শরীরের প্রতিরোধশক্তি বাড়িয়ে তুলে বিভিন্ন রোগ, সংক্রমণকে প্রতিহত করে। কুমড়োর মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট আমাদের শরীরকে ভেতর থেকে সুস্থ ও তরতাজা রাখে। তাই তাড়াতাড়ি কোনও রোগ থেকে সুস্থ হয়ে উঠতে বা আগে থেকেই রোগ প্রতিরোধ করতে কুমড়োর মতো ভিটামিনসমৃদ্ধ সবজি আমাদের খাদ্যতালিকায় অবশ্যই রাখা উচিত।

Eye Care: চোখে ক্লান্তির ছাপ, দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণ, সমাধান মিলবে ঘরোয়া উপায়েই

রক্তাল্পতা দূর করে
কুমড়োতে উপস্থিত ফোলেট শরীরে আয়রন আত্মীকরণের ক্ষমতা বাড়ায়। কাজেই হিমোগ্লোবিনের মাত্রাও বাড়ে কুমড়ো খেলে।

এনার্জি বাড়ায়
কুমড়োর বীজও অবহেলার বস্তু নয়। তাই ফেলে না দিয়ে সঠিক ব্যবহার করুন। বীজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, ক্যালসিয়াম, কপার, জিঙ্কের মতো খনিজ পদার্থ। এ ছাড়াও প্রোটিন, ফাইবারের মতো একাধিক উপাদান সমৃদ্ধ করেছে এর বীজকে। তাই শক্তিশালী এই বীজ আমাদেরও শক্তিশালী করে। এনার্জি বৃদ্ধি করে।

প্রস্টেটের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করে
কুমড়োর বীজ প্রস্টেটের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। এতে উপস্থিত খনিজ প্রস্টেটের বৃদ্ধি রোধে বিশেষ সহায়ক।

হাড়ের সমস্যা নিরাময় করে
কুমড়োর বীজে থাকা ক্যালসিয়াম, জিঙ্ক ও ম্যাগনেসিয়াম অস্টিওপোরোসিসের মতো হাড়ের সমস্যা নিরাময়ে সহায়তা করে।