শরীরে ভিটামিন ডি-এর অভাব হচ্ছে? রক্ত পরীক্ষা না করেও কী করে বোঝা যাবে

গুড হেলথ ডেস্ক

ভিটামিন ডি (Vitamin D) আমাদের শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। সাধারণত সূ্র্যরশ্মি থেকে বা নির্দিষ্ট কিছু খাবারের মাধ্যমে আমরা ভিটামিন ডি পেয়ে থাকি। আমাদের দেহে স্বাভাবিক হাড়ের গঠনের জন্য ভিটামিন-ডি এর ভূমিকা অপরিসীম। হাড়ে ক্যালসিয়াম জোগায় ভিটামিন-ডি। এই ভিটামিনের ঘাটতি হলে শরীরই তা জানান দেয় নানাভাবে। বিশেষ করে জিভে এমন কিছু লক্ষণ দেখা দেয় যা থেকেই বোঝা যায় শরীরে ভিটামিন ডি-এর ঘাটতি হচ্ছে।

Vitamin D

কী কী লক্ষণ দেখে বুঝবেন?

জিভে জ্বালাভাব, জিভ খসখসে হয়ে যেতে পারে।

মুখের ভেতর শুকিয়ে যাবে।

স্বাদে বদল বা স্বাদ চলে যেতে পারে।

খাবার সময়ে মুখের ভেতর জ্বালা করবে।

ঠোঁটের ফোলাভাব, ঠোঁটে জ্বালা করবে।

ভিটামিন ডি-র (Vitamin D) ঘাটতি হলে হাড়ের পাশাপাশি ক্ষতি হতে পারে দাঁত ও পেশিরও। এমনকি বিপর্যস্ত হতে পারে মানসিক স্বাস্থ্যও। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আগে রক্ত পরীক্ষা করে দেখা হত শরীরে ভিটামিন ডি-এর ঘাটতি হচ্ছে কিনা। এখন জিভ পরীক্ষা করেও তা বোঝা যাবে।

জিভে এইসব লক্ষণ দেখা দিলে দেরি না করে ডাক্তার দেখিয়ে নিতে হবে। সাধারণত এমন হলে ফাস্টিং ব্লাড সুগার, ভিটামিন ডি, ভিটামিন বি৬, জিঙ্ক, ভিটামিন বি১ ও টিএসএইচ পরীক্ষা করতে বলেন ডাক্তারবাবুরা।

Vitamin D Deficiency

কীভাবে মিলবে প্রতিকার

সাধারণত আমাদের শরীর সূর্য রশ্মি থেকে ভিটামিন ডি লাভ করে। তবে শুধু মাত্র সূর্যই শরীরে ভিটামিন ডি-র (Vitamin D) উৎস নয়। দুধ, ডিমের কুসুম, দই, কমলালেবুর রস, কড লিভার অয়েল, মাছ প্রভৃতি খাবার থেকেও পাওয়া যায় ভিটামিন ডি। দেহে ভিটামিন ডি-র অভাব ঘটলে এই খাবারগুলো অবশ্যই ডায়েটে রাখতে হবে। তবে সবকিছুই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে করা উচিত। নিজে থেকে ডাক্তারি করে ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট খাবেন না। এতে হিতে বিপরীত হবে।