অতিরিক্ত চিন্তা, স্ট্রেসই অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারের কারণ, সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হার্টের

গুড হেলথ ডেস্ক

অতিরিক্ত চিন্তা, ভাবনা, উৎকণ্ঠা উদ্বেগের নানা দিক। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সবকিছুতেই চিন্তার বাতিক তৈরি হয়ে গেলেই মুশকিল। সামান্য ব্যাপারেও উদ্বেগ বাড়বে। দুশিন্তা থেকেই অবসাদ বাসা বাঁধবে। তার থেকে মানসিক চাপ বা স্ট্রেস, ফোবিয়া (Anxiety disorder)। চঞ্চল, চিন্তাগ্রস্থ মনের রোগ কখন যে ক্রনিক ডিসঅর্ডারে পৌঁছে যাবে তার টেরও পাওয়া যাবে না।

উদ্বেগ হল মনের সবচেয়ে বড় শত্রু। শুরুটা এই অসুখ দিয়েই হয়। তার থেকেই ডালপালা ছড়ায় মনের নানা বিচিত্র রোগ (Anxiety disorder)। বাইপোলার ডিসঅর্ডারের সূচনাটাও উদ্বেগ দিয়েই হয়। অসুখ গুরুতর হলে মন বেয়ে সোজা পৌঁছে যায় হার্টে। ফলে হার্টের রোগ, শ্বাসকষ্ট এমনকি পেশী ব্যথা, পেটের রোগ, রক্তচাপের ওঠানামা—সবই দেখা দেয় একে একে।

 Anxiety

কী এই অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার (Anxiety disorder)?

মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা বলেন, উদ্বেগ হল মনের একটা জটিল অবস্থা, যেখানে স্বাভাবিক চিন্তা-ভাবনার পথটা বন্ধ হয়ে যায়। ভয়, ছটফটানি, চাঞ্চল্য, দুঃখ, ফোবিয়া সব মিলেমিশে এমন এক জটপাকানো অবস্থা তৈরি হয়, যে তার ছাপ পড়ে সারা শরীরেই। উদ্বেগ ক্রনিক হয়ে গেলে তখন আর মনের অবস্থা থাকে না, জটিল অসুখে পরিণত হয়। বিশেষজ্ঞরা, তখন তার নাম দেন অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার।

 Anxiety and Heart Disease

প্রতি বছর বিশ্বের কয়েক কোটি মানুষ এই রোগে ভোগেন। এই ডিসঅর্ডার ছ’মাসের বেশিও স্থায়ী হয়। তখন তাকে ক্রনিক ডিসঅর্ডার বলে। এই পর্যায়ে পৌঁছে গেলে রোগীকে মনোরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে নিয়মিত কাউন্সেলিং করাতে হয়।

এই সমস্যা সবচেয়ে বেশি দেখা যায় বয়ঃসন্ধির ছেলেমেয়েদের মধ্যে। সামাজিক ও পারিপার্শ্বিক পরিবেশের নানা চাপ, বন্ধুবান্ধব-আত্মীয় মহল থেকে নানারকম মন্তব্য, বা পড়াশোনা-কেরিয়ারের চিন্তা সব মিলিয়েই সামাজিক মেলামশায় একটা ভয় বা আতঙ্ক তৈরি হয়। একাকীত্বে ভুগতে থাকে অনেকে, নিজেকে গুটিয়ে নিতে থাকে। একে বলে ‘সোশ্যাল অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার।’ (Anxiety disorder) এই রোগ মনে ধরলে সাবধান হওয়া দরকার। একাকীত্বের বোধ থেকেই মনের আরও জটিল পরিস্থিতির তৈরি হতে পারে। এমনকি আত্মহত্যার প্রবণতাও বাড়ে।

Heart attack

মনের রোগে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয় হার্টের

মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, উদ্বেগ থেকে ফোবিয়া বা আতঙ্ক তৈরি হয় মনে। যার থেকেই উৎকণ্ঠা বাড়ে। ‘প্যানিক ডিসঅর্ডার’-এ আক্রান্ত হয় রোগী।

মনোসংযোগ কমে যায়, মাত্রাতিরিক্ত চিন্তায় হৃদগতি বাড়ে। বুকে ব্যথা হতেও দেখা গেছে অনেকের। শ্বাসের গতি ধীর হয়। হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও দেখা দেয়। অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডার (Anxiety disorder) ও প্যানিক ডিসঅর্ডার যদি একটানা চলতে থাকে তাহলে অবসাদ, মাথাব্যথা, ঝিমুনিভাব, কাজে অনীহা দেখা দেয়। এমনকি স্নায়ুর উপরেও তার প্রভাব পড়ে। শরীরে হরমোনের ভারসাম্য বিগড়ে যায়। রক্তচাপেরও তারতম্য হতে পারে।

প্যানিক ডিসঅর্ডার ক্রনিক হয়ে গেলে শরীরে এনজাইম ক্ষরণও অনিয়মিত হয়ে যায়। খাবার হজমে সমস্যা হয়, পেটের রোগও দেখা দিতে পারে। খিদে কমতে থাকে, বিপাকক্রিয়ায় বড়সড় প্রভাব পড়ে। স্ট্রেস থেকে লিভারের অসুখ হওয়ারও সম্ভাবনা থাকে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন ‘সাইকোলজিক্যাল ডিসট্রেস’ থেকে জটিল লিভারের রোগও ধরতে পারে।