Arthritis: পুরনো চোট থেকেও ভোগাতে পারে বাতের ব্যথা, দেরি না করে পরীক্ষা করান

গুড হেলথ ডেস্ক

বয়স বাড়লেই যে সমস্ত সমস্যায় আমরা খুব বেশি করে কাবু হই, তার মধ্যে অন্যতম হল বাতের ব্যথা বা আর্থ্রাইটিস (Arthritis)। মহিলা, পুরুষ নির্বিশেষে এই অসুখে আক্রান্ত হন। কারও কারও ব্যথা এমন স্তরে যায়, যেখানে দাঁড়িয়ে সামান্য সুস্থভাবে চলাফেরার ক্ষমতাটুকুও লোপ পায়।

আর্থ্রাইটিস (Arthritis) আসলে কী?
মূলত জয়েন্ট বা সন্ধিস্থলের ব্যথা। গ্রিক শব্দ ‘আর্থো’ অর্থাৎ জয়েন্ট বা সন্ধি এবং ‘আইটিস’ অর্থাৎ ইনফ্ল্যামেশন বা প্রদাহ। এতে ব্যথার সঙ্গে জায়গাটা লাল হয়ে ফুলে যায়। আর্থ্রাইটিস কখনও একটি সন্ধিস্থলে, কখনও আবার একাধিক সন্ধিস্থলেও হয়। অনেক সময় ব্যথার জায়গাটা স্টিফ বা শক্ত হয়ে যায়। দীর্ঘদিন ধরে যাঁরা এ অসুখে ভোগেন, তাঁদের সন্ধিস্থল বেঁকে পর্যন্ত যেতে পারে।

Arthritis

কেন হয়?

● আর্থ্রাইটিসের (Arthritis) মূল কারণ বয়স। যা আমাদের হাতে নেই। বয়স বাড়লে আমাদের শরীরের সন্ধিস্থলগুলোতে যে কার্টিলেজ থাকে, তা ধীরে ধীরে ক্ষয় পেতে শুরু করে। তা ছাড়া আমাদের দেহের ভেতরে হাড়ের সন্ধিস্থলে যে ফ্লুইড বা তরল পদার্থ থাকে, তা হাড়গুলিকে ঘর্ষণের হাত থেকে রক্ষা করে। বয়স বাড়তে থাকল এই ফ্লুইডও শুকিয়ে যেতে শুরু করে, তখন হাড় কাছাকাছি চলে আসে এবং হাড়ে হাড়ে ঘষা লাগে। তীব্র ব্যথা অনুভব হয়। ব্যথার পাশাপাশি পা স্টিফ বা বেঁকেও যেতে পারে।

 Arthritis

● এ ছাড়াও অতীতে সন্ধিস্থলে ঘটে যাওয়া কোনও চোট বা আঘাত লাগলে তা পরবর্তীতে আর্থ্রাইটিসের রূপ নিতে পারে।

● ওবেসিটি বা মাত্রাতিরিক্ত ওজন আর্থ্রাইটিসের অন্যতম বড় কারণ। ওজন বেশি হলে কোমর ও হাঁটুতে বেশি চাপ পড়ে, আর তা থেকে অস্টিওআর্থ্রাইটিসের সম্ভাবনা বাড়ে।

আর্থ্রাইটিসের (Arthritis) থেকে বাঁচবেন কী করে?

আর্থ্রাইটিস থেকে বাঁচতে প্রথমেই দরকার জীবনযাত্রার পরিবর্তন। জীবনকে সুসংবদ্ধ করুন। শরীরের ওজন বাড়তে দেবেন না। ওজনবৃদ্ধি শুধু আর্থ্রাইটিস নয়, অন্যান্য আরও অসুখ বিসুখকে ডেকে আনে। তাই নিয়মিত সময় অন্তর ওজন মাপুন। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ফাস্ট ফুড, জাঙ্ক ফুড ইত্যাদি এড়িয়ে চলুন। নিয়মিত শরীরচর্চা করুন।

 Arthritis

আর্থ্রাইটিসের বংশগত ইতিহাস থাকলে আগে থেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

হাঁটু বা শরীরের অন্য কোনও জয়েন্টে আগে থেকে কোনও চোট থাকলে সেটা অবহেলা করবেন না। সঠিক সময়ে চিকিৎসা করান।

সন্ধিস্থলে যাতে বেশি চাপ না পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখুন। শরীরে ভিটামিন ডি-র পরিমাণ কম থাকলে আর্থ্রাইটিসের সম্ভাবনা বাড়ে। তাই পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার খান। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্টও খেতে হতে পারে।