হাড়ের ক্ষয় রোগ হচ্ছে কমবয়সিদেরও, সুস্থ থাকতে কী করবেন

গুড হেলথ ডেস্ক

শরীরের ওজন নিয়ে এখন যতটা মাথাব্যথা আমাদের, ততটা কিন্তু হাড় নিয়ে নয়। অথচ এই হাড়ই কিন্তু বয়সকালে ধরে রাখবে আপনাকে। বয়স, জিনগত কারণ, মেনোপজ, অনিমিয়ত জীবন যাপনে দেখা দেয় অস্টিওপরেসিসের মতো হাড় ভঙ্গুর হয়ে যাওয়ার রোগ। ওজন কমানোর ঝোঁকে অল্পবয়সিদের মধ্যে বাড়ছে অস্বাস্থ্যকর ডায়েটের প্রবণতা। যার ফলে ওজন কমলেও ভেঙে যাচ্ছে শরীর। দুর্বল হচ্ছে হাড়।

অস্থিরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষের শরীর কিন্তু নাগাড়ে দশ-বারো ঘণ্টা বসে কাটানোর জন্যে তৈরি হয়নি। তাই কাজের চাপ যতই হোক না কেন, মাঝে মাঝেই উঠুন, খানিকটা হাঁটাচলা করুন, তার পর ফিরে এসে ফের কাজে বসুন। টানা বসে টিভি দেখাও খুব খারাপ অভ্যেস। একদিনে অনেক ব্যায়াম করলেই হাড় ভাল হয়ে যাবে না, তার দীর্ঘদিনের টানা যত্নআত্তি প্রয়োজন।

Bone Health

কেমন ডায়েট করবেন? হাড় সুস্থ রাখতে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, ভিটামিন ডি, ভিটামিন কে, স্ট্রনটিয়াম, বোরন, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম যুক্ত খাবার খাওয়া প্রয়োজন। দুধ, চিজ, দই জাতীয় খাবার ক্যালসিয়ামের আধার। এ ছাড়াও শাক সবজি, শস্য ফলের রসেও থাকে ক্যালসিয়াম। তেল যুক্ত মাছ যেমন ম্যাকরেল, স্যালম বা টুনায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ডি। এই ধরনের খাবার যদি ডায়েটে থাকে তবে আপনার হাড়ের স্বাস্থ্য ভাল থাকবে।

How to protect your bones

ওজন তোলা বা পেশির শক্তি বাড়ানোর এক্সারসাইজ হাড়ের ঘনত্ব বাড়াতে সাহায্য করে। তবে যদি কখনও হাড় ফ্র্যাকচার হয়ে থাকে তবে নাচ, দৌড় বা স্কিপিংয়ের মতো এক্সারসাইজ এড়িয়ে চলুন। তার বদলে তা়ড়াতাড়ি সিঁড়ি ভেঙে উঠুন বা হাঁটুন। এতে হার্টও ভাল থাকবে।