জয়েন্ট পেইন কমতে পারে নিয়মিত মেনে চলা কিছু অভ্যেসেই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: একটা সময় ছিল, যখন জয়েন্ট পেইনের সমস্যা শুধুমাত্র বয়স্কদেরই হতো। মাঝবয়সী অথবা বাচ্চারা এই সমস্যায় ভুগতো না বললেই চলে। কিন্তু জীবনযাত্রার জন্য এখন ছোট বড় সবাই আক্রান্ত হতে পারে জয়েন্ট পেইনে। তবে জয়েন্ট পেইন খুব গুরুতর সমস্যা না করলে বাড়িতেই কিন্তু এর থেকে মুক্তির উপায় রয়েছে, এমনই বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

কেন বাড়ছে জয়েন্ট পেইনের সমস্যা?

আধুনিক জীবনে এখন বেশিরভাগ মানুষেরই এক জায়গায় বসে কাজ, চলাফেরার পরিসর প্রায় নেই বললেই চলে। ফলে আমাদের শরীরের সন্ধিস্থলগুলো দীর্ঘক্ষণ নিষ্ক্রিয় অবস্থায় থাকে। এই কারণে সন্ধিস্থলের ব্যথা বাড়ে

  • অফিস বা বাড়িতে অনেককেই এসিতে থাকতে হয়। সারাক্ষণ ঠান্ডায় থাকলে জয়েন্টে ঠান্ডা লেগে ব্যথা হতে পারে
  • এখন বেশিরভাগ মানুষই ত্বক কালো হয়ে যাবে বলে রোদে বেরোতে চান না। কিন্তু আমাদের শরীরের জন্য একটু রোদেরও দরকার আছে। রোদ থেকে আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি থ্রি সংশ্লেষ হয়। এই ভিটামিন অস্থিসন্ধিস্থলগুলো ঠিকঠাক রাখে
  • বেশিরভাগ মানুষই এখন মেদাধিক্যে ভোগেন। মেদাধিক্যে জয়েন্ট পেইন বাড়তে পারে
  • ব্যায়াম করার অভ্যাস এখন প্রায় উঠেই গেছে। শরীরচর্চা বা খেলাধুলার পরিসরও নেই। এতে জয়েন্ট পেইনের সমস্যা বাড়ছে

ঘরেই প্রতিকার

  • নিয়মিত ব্যায়াম করলে জয়েন্ট পেইনের সমস্যা থেকে দিব্যি মুক্তি পাওয়া যায়। বিশেষত কোমরের ব্যথায় ভুজঙ্গাসন ও শলভাসন ম্যাজিকের মতো কাজ করে
  • হাতে মাসল পেইন হলে বাইসেপ, ট্রাইসেপ টোনিং এক্সাসাইজ করতে পারেন
  • শরীরে মেদ থাকলে ডায়েট বদলান। পুষ্টিকর খাবার খান। আগে ওজন কমান
  • প্রতিদিন নিয়ম করে আধ ঘণ্টা হাঁটুন। এই মুহূর্তে বাইরে বেরোতে না পারলে বাড়ির ছাদে কিংবা ঘরেই হেঁটে বেড়ান
  • দিনে অন্তত ৫ মিনিট শরীরে একটু রোদ লাগান
  • সবসময় ঠান্ডা ঘরে থাকবেন না। একভাবে বসে কাজ হলে প্রতি আধ ঘণ্টা অন্তর ৫ মিনিটের ব্রেক নিয়ে হাঁটাচলা করুন
  • হাঁটুতে খুব বেশি ব্যথা থাকলে নী ক্যাপস পরুন। গোড়ালিতে ব্যথা হলে অ্যাঙ্কল ক্যাপস পরুন। এতে হাঁটতে চলতে সুবিধে হয়
  • স্নানের আগে জয়েন্টগুলোয় একটু তেল মালিশ করতে পারেন। এতে ব্যথার উপশম হয়