জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যে বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়ানো জরুরি, স্তন্যপান সপ্তাহে পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের

গুড হেলথ ডেস্ক

প্রথম মাতৃত্বের স্বাদ পাওয়াকে স্বর্গীয় অনুভূতির সঙ্গে তুলনা করা হয়। মা হওয়ার দীর্ঘ পথ নারীকে সমৃদ্ধ করে, বহু অভিজ্ঞতায় পরিপূর্ণ করে তোলে। মা হওয়ার পরে সেই অভিজ্ঞতার ঝুলি আরও ব্যাপ্ত হয়। মায়ের দায়িত্বও বেড়ে যায়। মা হওয়ার পরে অর্থাৎ পোস্টপার্টাম পিরিয়ডে মায়ের দায়িত্ব যতটা থাকে, প্রেগন্যান্সির সময়ও ঠিক ততটাই থাকে। মাতৃত্বের প্রথম ধাপ হল ব্রেস্টফিডিং, সন্তানকে স্তন্যপান করানো। এই ব্রেস্টফিডিংয়ের (breastfeeding week 2022) প্রস্তুতি কিন্তু প্রেগন্যান্সি পিরিয়ড থেকেই শুরু হয়ে যায়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কীভাবে সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়াবেন সে ব্যাপারে প্রশিক্ষণ দেওয়া জরুরি। আর সন্তানের জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যে মাতৃদুগ্ধ অতি জরুরি।

Breastfeeding

এক জন মায়ের সন্তান জন্ম দেওয়ার পর অনেক আশঙ্কা, ভয়, জিজ্ঞাসা দানা বাঁধে মনের মধ্যে। শরীরেরও খুব যত্ন নিতে হয়। অনেক ভুল ধারণাও থাকে মায়েদের। শিশুটি পর্যাপ্ত পরিমাণে দুধ পাচ্ছে না বলে কাঁদছে। তার উপর বাড়ির লোকজনেরও একই আশঙ্কা তৈরি হয়। কোনও ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়াই কিনে আনা হয় একটা কৌটোর দুধ ও ফিডিং বোতল (breastfeeding week 2022)। ওই কৌটোবন্দি দুধ ফিডিং বোতলে ভরে খাওয়ানো শুরু হয়। সদ্যোজাতের বোতলের দুধ বা প্যাকেটের দুধ একেবারেই ঠিক নয়। নানারকম শারীরিক সমস্যা তৈরি হতে পারে। প্রতি বছর পনেরো লক্ষ শিশু মারা যায় নিউমোনিয়া, ডাইরিয়া, মেনিনজাইটিস ও অপুষ্টিতে। অর্থাৎ, প্রতি ৩০ সেকেন্ডে একটি শিশু মারা যায়। এর কারণই হল সঠিক সময় মায়ের বুকের দুধ না পাওয়া।

এ বছর ব্রেস্টফিডিং (breastfeeding week 2022) উইকের থিম নতুন মায়েদের সঠিক প্রশিক্ষণ দেওয়া (Breastfeeding: Educate and Support)। জন্মের প্রথম ছ’মাস মায়ের বুকের দুধই শিশুর পুষ্টি, বৃদ্ধি ও বুদ্ধির বিকাশ ঘটায়। শিশুর শারীরিক ও মানসিক গঠন তৈরি হয় মায়ের বুকের দুধেই। অথচ স্তন্যপান নিয়ে অনেক ভুল ধারণা আছে মায়েদের। অনেকেই মনে করেন শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ালে ফিগার নষ্ট হয়ে যায়। আবার অনেক মায়েরা ভাবেন, শুধু বুকের দুধেই শিশুর বৃদ্ধি হবে না। স্তন্যপান করানোর পাশাপাশি বাচারচলতি কৌটো দুধ বা কৃত্রিম দুধ খাওয়াতে শুরু করেন অনেকে। তবে এখন এইসব ভ্রান্ত ধারণার প্রাচীর মায়েরাই ভাঙছেন। সচেতনতা আগের থেকে বেড়েছে। যাঁরা নতুন মা হয়েছেন বা মাতৃত্বের স্বাদ পেতে চলেছেন, তাঁদের জন্য ব্রেস্টফিডিং নিয়ে পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

ভারতের মাত্র ৫০% শিশুকে জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যে স্তন্যপান  (breastfeeding week 2022) করানো হয়। মাত্র ৫৫% বাচ্চাকে ছয় মাস শুধুমাত্র বুকের দুধ খাওয়ানো হয়। জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যে স্তন্যপান করালে ২০% নবজাতকের মৃত্যু এড়ানো যায়। ডাক্তারবাবুরা বলছেন এই ব্যাপারে মায়েদের প্রশিক্ষণ দেওয়া জরুরি।

 Breast Milk

নবজাতকের পুষ্টি, বৃদ্ধি ও বিকাশের জন্য যাবতীয় প্রয়োজন মায়ের দুধ থেকে পাওয়া যায়। তাই জন্মের পরে, যত দ্রুত সম্ভব নবজাতককে মায়ের দুধ পান করানো দরকার। শিশুর জন্মের পরে, প্রথম ঈষৎ হলুদ বর্ণের যে গাঢ় দুধ নিঃসৃত হয়, তাকে ‘কলোস্ট্রাম’ বলা হয়। ‘কলোস্ট্রাম’ নবজাতকের জন্য অত্যন্ত উপকারি। কারণ, এতে পুষ্টিগুণ ছাড়াও আরও বিভিন্ন ধরনের ‘ইমিউনোগ্লোবিউলিন’ থাকে, যা নবজাতককে ভবিষ্যতে কয়েকটি রোগ থেকে মুক্ত রাখে।

আমাদের দেশের মায়েরা সন্তান জন্মের পরে, প্রায় এক বছর পর্যন্ত ৪০০-৬০০ মিলিলিটার দুধ দিতে পারেন। বাচ্চাদের ক্ষেত্রে প্রতি কিলোগ্রাম ওজনের জন্য ১০০ কিলোক্যালরি শক্তির প্রয়োজন হয়। আর মায়ের প্রতি ১০০ মিলিলিটার দুধে ৭০ কিলোক্যালরি শক্তি পাওয়া যায়। সেই হিসেবে তিন কিলোগ্রাম ওজনের কোনও শিশু যদি দৈনিক ৪০০-৫০০ মিলিলিটার দুধ পান করতে পারে, তা হলে তার পুষ্টির চাহিদা মেটে। মায়ের বুকের দুধ সহজপাচ্য এবং যে তাপমাত্রায় পান করানো দরকার, সেই তাপমাত্রাতেই পাওয়া যায়। এটি নিরাপদ এবং জীবাণুমুক্ত। তাই দ্বিধা না রেখে বাচ্চাকে বুকের দুধই দিন মায়েরা। কোনওরকম বাজারচলতি খাবার নবজাতককে ভুলেও খাওয়াবেন না।