বন্ধ্যত্বের কারণ কি টিউবাল ব্লকেজ, কী ধরনের চিকিৎসায় মা হওয়া সম্ভব 

গুড হেলথ ডেস্ক

মেয়েদের জননতন্ত্রের নানা সমস্যা ইদানীং কালে যেন ঘরে ঘরে বাড়ছে। এর ফলে শারীরিক অসুস্থতা তো বটেই, সেই সঙ্গে বড় সমস্যা হয়ে উঠছে বন্ধ্যত্ব। বহু দম্পতি ভুগছেন গর্ভধারণ না করতে পারার সমস্যায়। তার মধ্যে একটি হল ফ্যালোপিয়ান টিউবে ব্লকেজ (blocked fallopian tubes)। এই ধরনের সমস্যা থাকলে কনসিভ করা খুব মুশকিল হয়ে যায়। তবে অভিজ্ঞ স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ফ্যালোপিয়ান টিউবে ব্লকেজ বা টিউবাল ব্লকেজ থেকে মুক্তি সম্ভব। বন্ধ্যত্বের আধুনিক চিকিৎসায় মা হওয়া কঠিন ব্যাপার নয়।

Blocked Fallopian Tubes

টিউবাল ব্লকেজ কী?

শুক্রাণু ও ডিম্বানুর অবাধ যাতায়াতের জায়গাই হল ফ্য়ালোপিয়ান টিউব। পুরুষের শুক্রাণু এই পথেই এসে ডিম্বানুর সঙ্গে মিলিত হয়। তারপর নিষিক্ত হয়ে জরায়ুতে স্থাপিত হয়। কিন্তু এই পথই যদি অবরুদ্ধ হয়ে যায়, তখনই সমস্যা শুরু হয়। মাতৃত্বের পথে অন্যতম বাধা হতে পারে এই টিউবাল ব্লকেজ। 

এখন প্রশ্ন হচ্ছে ফ্যালোপিয়ান টিউবে ব্লকেজ (blocked fallopian tubes) কেন হয়। ডাক্তারবাবুরা বলছেন, সংক্রমণ থেকেই ফ্যালোপিয়ান টিউবে ব্লক হতে পারে। সেক্ষেত্রে এসটিডি বা সেক্সুয়াল ট্রান্সমিটেড ডিজিজ দায়ী হতে পারে। আবার অন্য কারণও আছে। দেখা গেছে, যক্ষা বা টিউবারকিউলোসিস থেকেও ফ্যালোপিয়ান টিউবে ব্লক হতে পারে। পেটে কোনও সার্জারি হলে বা অ্যাপেনডিক্স থেকেও ফ্যালোপিয়ান নালিতে ব্লক তৈরি হতে পারে। 

এন্ডোমেট্রিওসিস থেকেও টিউবাল ব্লকেজ হয় আবার পেলভিক ইনফ্ল্যামেটারি ডিজিজ হলে জরায়ু ও ফ্যালোপিয়ান টিউবের সংযোগস্থলের নরম অংশটা ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ফলে শুক্রাণু-ডিম্বানুর মিলন সম্ভব হয় না।

আইভিএফ আর আইইউআই-এর ফারাক কোথায়? বন্ধ্যত্বের চিকিৎসায় দুটোই কার্যকরী

 HSG

চিকিৎসা কী?


টিউবাল ব্লকেজ আগে থেকে বোঝা সম্ভব নয়। ইনফার্টিলিটির চিকিৎসা করাতে গেলে ডাক্তাররা যখন নানারকম টেস্ট দেন, তখনই ধরা পড়ে এই সমস্যা। 

ল্যাপারোস্কোপি সার্জারি করে ফ্যালোপিয়ান টিউবের ডট ছাড়ানো যায়। তবে এই অপারেশন করার আগে অনেকগুলো বিষয় মাথায় রাখতে হয়। প্রথমত, মহিলার বয়স যদি কম হয় এবং স্বামীর শুক্রাণু সচল ও সক্রিয় থাকে তাহলে টিউবার অপারেশনের পরে স্বাভাবিক উপায়ে মাতৃত্ব লাভ সম্ভব।

অনেক সময় দেখা যায় টিউবাল সার্জারির পরে এক্টোপিক প্রেগন্যান্সির ঝুঁকি বেড়েছে। জরায়ুর বদলে ভ্রূণ ফ্য়ালোপিয়ান টিউবে বেড়ে উঠতে শুরু করে। তখন পরিস্থিতি জটিল হয়ে ওঠে। এমন সমস্যা তৈরি হলে তখন মাতৃত্ব লাভের একমাত্র উপায় হল ইনভিট্রো ফার্টিলাইজেশন বা আইভিএফ পদ্ধতি। 

ওভারিতে সিস্ট, ফ্যালোপিয়ান টিউবে ব্লক, এন্ডোমেট্রিয়োসিস বা পলিসিস্টিক ওভারি থাকলে অনেক সময়ে ল্যাপরোস্কোপি-হিস্টিরিয়োস্কোপি করা হয়। এই পদ্ধতিগুলিতে সন্তান আসার সম্ভাবনা বাড়ে।