বন্ধ্যত্ব: কেন বাড়ছে? সমাধান কীসে? দেরিতে সন্তান চাইলে কী করবেন বুঝিয়ে বললেন ডাক্তারবাবু

গুড হেলথ ডেস্ক: এখনকার সেডেন্টারি লাইফস্টাইলে সকলেই ছুটছেন। তারপর এখন অনেকেই বেশি বয়সে বিয়ে করছেন। তাই সন্তানধারণে অনেক রকম জটিলতা হচ্ছে। সে নিয়ে ভয় ও দুশ্চিন্তাও বাড়ছে। বন্ধ্যত্বের সমস্যা বাড়ছে। আজ থেকে ২০-৩০ বছর আগেও বন্ধ্যত্বের (Infertility) সমস্য়া এত বাড়েনি। এখন প্রতি ৭ জন দম্পতির মধ্যে একজন দম্পতি (১৫%) বন্ধ্যত্বের শিকার।  এর কারণ কী, সমাধানই বা কী? বুঝিয়ে বললেন ক্রেডেল ফার্টিলিটি সেন্টারের স্ত্রী-রোগ বিশেষজ্ঞ ডক্টর নিশাত হাশমি।

বন্ধ্যত্ব কেন বাড়ছে?

ডাক্তারবাবু বিস্তারিত আলোচনায় বুঝিয়ে বললেন, বন্ধ্যত্ব কেন বাড়ছে। যদি দেখা যায় কোনও দম্পতি বছরের পর বছর অসুরক্ষিত যৌনমিলন করার পরেও সন্তান আসছে না তখন তাকে বন্ধ্যত্ব বলা হবে। আবার যদি দেখা যায় মেয়ের বয়স ৩৫ বছর বা তার বেশি এবং বার বার চেষ্টা করেও মা হতে পারছেন না, তখন তাকে বন্ধ্যত্ব বলা যাবে। এর কারণ হতে পারে বেশি বয়সে বিয়ে বা বেশি বয়সে সন্তান নেওয়ার পরিকল্পনা। বয়স যত বাড়বে মহিলাদের ডিম্বানুর গুণগত মান ও সংখ্যা কমতে থাকবে। তার ওপর সেডেন্টারি লাইফস্টাইলে কাজের চাপ, অত্য়ধিক মোবাইল-ল্যাপটপের ব্যবহার, খাওয়াদাওয়ায় অনিয়ম, মানসিক চাপ সবই বন্ধ্যত্বের কারণ হতে পারে। মানসিক চাপ বাড়লে হরমোন ক্ষরণে তারতম্য হয় যা প্রেগন্য়ান্সির ক্ষেত্রে জটিলতা তৈরি করতে পারে।

পুষ্টিকর ডায়েট ও নিয়ম মেনে এক্সারসাইজ এই সমস্যা অনেক কমিয়ে দিতে পারে বলে জানাচ্ছেন ডক্টর নিশাত হাশমি। তিনি বুঝিয়ে বললেন, ডায়েটে কী কী রাখলে ভরপুর পুষ্টি পাওয়া যাবে, পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়বে। কোনও দম্পতি পরে সন্তান নিতে চাইলে অথবা স্বামী বা স্ত্রীয়ের মধ্যে কেউ ক্যানসার আক্রান্ত হলে, সেক্ষেত্রে কীভাবে ডিম্বাণু সংরক্ষণ করে সন্তান নেওয়া যেতে পারে তাও উঠে এল আলোচনায়।

বন্ধ্যত্ব: কখন বুঝবেন সমস্যা, কী কী পরীক্ষা, চিকিৎসাই বা কী, বুঝিয়ে বললেন ডাক্তারবাবু