Dark Chocolate: হার্ট ভাল রাখে ডার্ক চকোলেট? কতটা খেলে কমবে হৃদরোগের ঝুঁকি

গুড হেলথ ডেস্ক

দুধ-মাখনে ঠাসা চকোলেট খেতে আজকাল মানাই করছেন ডাক্তারবাবুরা। এমনিও ঘরে ঘরে ওবেসিটি। বাচ্চারাও এখন স্থূলত্বের শিকার। তার ওপর হোয়াইট চকোলেট নিয়মিত খেলে কোলেস্টেরল আরও বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। পুষ্টিবিদেরা তাই বলছেন, এক গাদা চিনি, মাখনে ভরা চকোলেট নয়, বরং ঘন কালচে রঙা ডার্ক চকোলেটই (Dark Chocolate) শরীরের জন্য উপকারি। এতে চকোলেট খাওয়ার ইচ্ছাও মিটবে, শরীরেরও ক্ষতি হবে না।

গবেষণা বলছে, ডার্ক চকোলেট (Dark Chocolate)  হার্ট ভাল রাখতে সাহায্য করে। নানা খনিজ ও অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টে সমৃদ্ধ ডার্ক চকোলেট রক্তে কোলেস্টেরল জমতে দেয় না। শরীরে খারাপ কোলেস্টেরল এলডিএল-এর মাত্রা কমায়, ভাল কোলেস্টেরল বা এইচডিএল-এর পরিমাণ বাড়ায়। একই সঙ্গে অবসাদ বা স্ট্রেসও দূর করে।

Dark Chocolate

কোকো ফল থেকে তৈরি ডার্ক চকোলেটের (Dark Chocolate)  গুণ অনেক। এর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, রক্ত সঞ্চালণ বাড়ায়, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

Hepatitis: প্রচণ্ড গরমে বাড়ছে হেপাটাইটিসের আতঙ্ক, লিভারের যত্ন নিন

Dark Chocolate Benefits

খনিজ ও ফাইবারে ঠাসা ডার্ক চকোলেট (Dark Chocolate) 

১০০ গ্রাম ডার্ক চকোলেটের বারে রয়েছে ১১ গ্রাম ফাইবাপ, ৬৭% আয়রন, ৫৮% ম্যাগনেসিয়াম, ৮৯% কপার ও ৯৮% ম্যাঙ্গানীজ। এর ফ্ল্যাভানলস ও পলিফেনলস শরীরের অক্সিডেশন ড্যামেজ কন্ট্রোল করে। অক্সিডেটিভ স্ট্রেস থেকে শরীরে নানা সমস্যা দেখা যেতে পারে। যেমন ডায়াবেটিস, হার্টের অসুখ, অ্যালঝাইমার্স, পার্কিনসনস ডিজিজ থেকে ক্যানসার। ডার্ক চকোলেট অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে। শরীরের নানা রোগ সারাতে ডার্ক চকোলেট বিশেষ উপকারি।

 

হৃদরোগের ঝুঁকি কমায় ডার্ক চকোলেট (Dark Chocolate) , কতটা খাওয়া জরুরি

হার্ট ভাল রাখে ডার্ক চকোলেট। গবেষণা বলছে, সপ্তাহে পাঁচ বার ডার্ক চকোলেট খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে Dark chocolate & heart problems – Sehha Groupপ্রায় ৫৭ শতাংশ। একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, ডার্ক চকোলেটে থাকা পলিফেনল ও থিওব্রোমিন রক্তের এলডিএল (লো-ডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন) বা খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমিয়ে ভাল কোলেস্টেরল বা এইচডিএল-এর মাত্রা বাড়ায়। ফলে হার্টের ধমনীতে খারাপ কোলেস্টেরল জমতে পারে না। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়।

তাছাড়া ডার্ক চকোলেট খেলে ধমনীতে নাইট্রিক অক্সাইড (NO) তৈরি হয়। তখন মস্তিষ্ক ধমনীকে বিশ্রাম নেওয়ার সঙ্কেত পাঠায়। ফলে রক্তচাপের ভারসাম্য বজায় থাকে। শরীরে রক্ত চলাচলও একটা সিস্টেম মেনে হয়।

ডাচ বিজ্ঞানীরা তাঁদের একটি গবেষণায়, প্রায় ৫৫ হাজার মানুষকে ২ থেকে ৬ আউন্স কোকোয়া খাইয়ে দেখেন তাঁদের অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের গতি প্রায় ২০ শতাংশ ক্ষেত্রেই স্বাভাবিক হয়েছে। সেক্ষেত্রে স্ট্রোকের ঝুঁকি কমে গেছে ৫০ শতাংশ।